The types of Satellites and Sensors in Remote Sensing | রিমোট সেন্সিং-এ স্যাটেলাইট এবং সেন্সরের প্রকারভেদ

This article will discuss the types of satellites and Sensors in Remote Sensing This is one of the most important and basic portions of remote sensing.

Table of Contents

What is Satellite?

The satellite better to say in the context of remote sensing, the artificial satellite is an object that has been intentionally placed into a revolving path or orbit and can operate by itself, carrying with sensor to make star maps and maps of planetary surfaces, planetary observation, communication, navigation, weather monitoring, etc.

Satellite related terminology:

The important terminology regarding the satellite system is as follows.

1. SLV (Satellite launch vehicle):

A launch vehicle a carrier rocket lifts a satellite from a launchpad to a place in its orbit. Most of the Launchpad is on land. Some are launched at sea from a submarine or a mobile maritime platform. The Indian first launch of the SLV took place in Sriharikota, (a barrier island off the Bay of Bengal coast of Nellore district in Andhra Pradesh from Satish Dhawan Space Centre) on 10 August 1979. The final successful launch of the SLV took place on 18 July 1980.

2. Orbit:

The course of motion around the earth taken by a satellite in space is known as orbit. A satellite generally follows an elliptical orbit around the earth balancing with the satellite’s straight-line (centrifugal tangential) velocity and the Earth’s gravitational pull.

Different types of orbits
  • Equatorial orbit: If an orbital plane contains the equatorial plane is termed an equatorial orbit.
  • Polar orbit: The orbital plane containing the center of the earth and both pole is a polar orbit.
  • Orbital Inclination: The angle between the orbital plane and the equatorial plane is known as orbital inclination. The orbital inclination of an equatorial orbit is 00 and the polar orbit is 900.
  • Inclined orbit: when the inclination of an orbit is >00 to < 900 is known as an inclined orbit. When it is close to 900 it is near-polar orbit.
  •  Orbital Period: The time taken by a satellite to one complete revolution around the earth on its orbit is called the orbital period or period.

3. Path or Ground Track:

  • The portion on the earth’s surface traced by a satellite as it moves across the sky is called its Path or ground track.
  • Swath: The total width of the area on the ground track covered by a satellite sensor is called Swath or Field of view (FOV).
  • Row: The latitudinal centerline of a frame of imagery at the time of scanning of the terrain below by a scanner of a satellite on its path is called a row.
  • Repeat cycle: The time gap of a satellite repeating its path after a fixed time is called the repeat cycle of the satellite.
Ground Track and Related Terminology

4. Nadir Point & Line:

  • Nadir point: It is an imaginary point on the ground exactly beneath the satellite’s scanner.
  • Nadir Line: The imaginary line along the nadir point on the ground track is known as the nadir line.

Types of the satellite:

1. As per orbital Height from the Earth:

  1. High Earth orbit: (>= 35,780km from the earth’s surface): Too many weather satellites and some communications satellites have a high Earth orbit.
  2. Medium Earth orbit: (2000 to 35780Km from the earth’s surface): In this group of satellites works for navigation and special purpose and is designed to monitor a particular region.
  3. Low Earth orbit: (9180 to 2000km from the earth’s surface): Most scientific satellites are in this group. NASA’s Earth Observing System is an example of it.

Low Earth satellites get closer to Earth. So, the pull of gravity gets stronger. That is why the satellite of this group moves more quickly. For example, NASA’s Aqua satellite requires about 99 minutes to orbit the Earth at about 705 kilometers above the earth.

Inversely high earth satellite moves slower. A weather satellite about 36,000 kilometers from Earth’s surface takes about 24 hours to complete an orbit. In the same way at a distance of about 3,84,000 kilometers from the center of the Earth, the Moon completes a single orbit in 28 days.

2. As per relative motion and orbital inclination:

  1. Geosynchronous Satellite: The satellite revolves in a circular or elliptical orbit, which is synchronized with the rotational period of the earth with zero or close to zero inclination is known as a geosynchronous satellite.
    • When it is moving along the circular orbit with zero inclination and synchronized with the earth’s rotation, the satellite will appear stationary in respect of the earth’s surface and is known as a geostationary satellite.
    • Geostationary orbits are located at a high altitude of 36,000 km. The satellite always views the same large area on the earth. Meteorological satellites are a suitable example of this group. Indian INSAT series of satellites are also in this group.
Types of Satellite and Sensor in Remote Sensing

2. Sun-synchronous Satellite: The satellite revolves in a circular or elliptical polar or near-polar orbit, which is synchronized with the constant local time of day in each area on the earth is known as a sun-synchronous satellite. All the satellites in low and medium earth orbit are in this group. Earth observation satellites such as ae Landsat, SPOT, and IRS are usually sun-synchronous Satellites.

What is Sensor?

sensor is a device, machine, or subsystem used to take observation of and send the information to other electronic circuitry linked with it. It has mainly two parts or components. They are optical components or systems and detectors.

The quality of a sensor depends upon the performance of:

Spatial Resolutions: the size of the smallest possible feature that can be detected or the linear dimension on the ground represented by each pixel or grid cell in the image taken by a sensor.

Spectral Resolutions: It is the quality of a sensor that can record the number and dimension of wavelength bands of electromagnetic spectrum employed in image acquisition. For example, the photographic infrared band covers from about 0.7 1.0 (µm) micrometers.

Temporal Resolutions: It is the frequency of repetitive coverage. It depends upon the pre-fixed satellite motion. For example, the Landsat satellite revisits an area every 16 days while the SPOT satellite can image an area every 1 to 4 days interval.

Radiometric Resolutions: It refers to the difference in signal strength represented by a number in pixels. The number of possible brightness values in each band of data.  It is determined by the number of bits into which the recorded energy is divided. In 2-bit data, the values range from 0 to 3 (22=4), in 6-bit data, it is from 0 to 63 (26=64), and similarly, in 8-bit data, it is from 0 to 255 (28=256). 

Types of Sensor:

1. According to the energy source:

  1. Active sensor: The sensor which detects the reflected response from target objects which are irradiated from an artificial source. Ex. RADAR (Radio Detection and Ranging) LIDER (LIGHT Detection and Ranging) or camera with flashlight.
  2. Passive Sensor: The sensor detects the reflected or emitted electromagnetic radiation from a natural source. Ex. All remote sensing sensors or cameras without flashlights when taking photographs in daylight. 
  3. Other Sensor: Some other sensors are used for the different purposes of remote sensing. They are a Panoramic Camera, Microwave Radiometer, and optical scanner.

2. According to the use of sensors in remote sensing:

  1. Arial Camera
    • Single-lens
    • Multi lens
    • Strip camera
  2. Electronic Camera
  3. Multi-Spectral Scanner (MSS)
    • Whiskbroom MSS
    • Push broom  MSS
  4. Thermal Scanner
  5. Microwave Sensor
    • RADAR
    • LIDAR
  6. Microwave Radiometer
  7. Microwave Scanning Radiometer
    • For Example, the use of different types of scanners is used in: Landsat 1, 2, and 3 carrying a multispectral scanner (MSS); Landsat 4 and 5 carried a Thematic Mapper sensor (TM). Landsat 7 carries an Enhanced Thematic Mapper (ETM). Landsat 8 carries the Operational Land Imager (OLI).

3. According to the quality of the sensor:

1. In terms of the spatial resolution

  • Low-resolution systems (approx. 1 km or more)Medium resolution systems (approx. 100 m to 1 km)
  • High-resolution systems (approx. 5 m to 100 m)
  • Very high-resolution systems (approx. 5 m or less)

2. In terms of the spectral resolutions:

  • Optical imaging systems (include visible, near-infrared, and shortwave infrared)
    • Panchromatic or Mono-spectral (single wavelength band, black and white, greyscale image) systems
    • Multispectral (several spectral bands) systems
    • Super-spectral (tens of spectral bands) systems
    • Hyper-spectral (hundreds of spectral bands) systems
  • Synthetic aperture radar (SAR) imaging systems
    • Single-frequency {Lband (1–2 GHz), or Cband (4–8 GHz), or X-band(8 to 12 GHz)}
    • Multiple frequencies (Combination of two or more frequency bands)
    • Single polarization (VV- for vertical transmit and vertical receive, or HH-horizontal transmit and horizontal receive, or HV-for horizontal transmit and vertical receive)
    • Multiple polarization (Combination of two or more polarization modes)
  • Thermal imaging systems

Video

Here is the video on the topic: Types of Satellite and Sensor in Remote Sensing (Click Here)

Homework Questions on the topic: Types of Satellite and Sensor in Remote Sensing:

Q1. Discuss the different types of satellite orbit with a suitable diagram.

Q2. Discuss the different types of satellites with suitable diagrams.

Q3. Discuss the different types of sensors based on their qualities.

These are the types of satellites and Sensors in Remote Sensing which are discussed in detail. In the article for any kind of doubts you can as in the comments or can fill up the contact form.

Related Topics:

Notes in Bengali

রিমোট সেন্সিং-এ স্যাটেলাইট এবং সেন্সরের প্রকারভেদ

স্যাটেলাইট কি ?

স্যাটেলাইট  বা, কৃত্রিম উপগ্রহ এমন একটি বস্তু যাকে  পরিকল্পিতভাবে  মহাকাশের একটি ঘূর্ণন পথ বা কক্ষপথে স্থাপন করা হয়, যারা নিজেদের সঙ্গে সংযুক্ত  বিভিন্ন ধরনের সেন্সর  বা সংবেদক  নিয়ে তারার মানচিত্র এবং গ্রহের পৃষ্ঠের মানচিত্র তৈরি করতে পারে, গ্রহ পর্যবেক্ষণ , যোগাযোগ, নেভিগেশন, আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ, ইত্যাদি কাজ নিজেরাই করতে পারে ।

কৃত্রিম উপগ্রহ সম্পর্কিত কিছু পরিভাষা:-

1. এস.এল.ভি

(স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণকারী যান): সাধারণত, এটি একটি উপগ্রহ ক্যারিয়ার রকেট বা একটি উৎক্ষেপণ যান। এটি একটি উপগ্রহকে একটি লঞ্চপ্যাড থেকে তার কক্ষপথের একটি স্থানে উত্তোলন করে। লঞ্চপ্যাডের অধিকাংশই  মূল স্থলভূমিতে অবস্থান করে। কিছু আবার সাবমেরিন বা ভ্রম্যমান সামুদ্রিক প্ল্যাটফর্ম থেকে  মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়। এস.এল.ভি. -র ভারতীয় প্রথম উৎক্ষেপণ হয়েছিল 10ই আগস্ট 1979 সালে শ্রীহরিকোটায় (সতীশ ধাওয়ান মহাকাশ কেন্দ্র) থেকে, কিন্তু সে বারে সেই উৎক্ষেপণ সাফল্য লাভ করেনি। এসএলভির চূড়ান্ত সফল উৎক্ষেপণ  ঘটেছিল 18 ই জুলাই 1980 সালে।

2. কক্ষপথ:

মহাকাশে একটি উপগ্রহ দ্বারা পৃথিবীর চারপাশে পরিভ্রমণের গতিপথ ই কক্ষপথ নামে পরিচিত। একটি স্যাটেলাইট সাধারণত পৃথিবীর চারপাশে একটি উপবৃত্তাকার কক্ষপথ অনুসরণ করে, যা স্যাটেলাইটের কেন্দ্র বহির্মুখী বল এবং পৃথিবীর মহাকর্ষীয় টানে ভারসাম্য বজায় রাখে।

নিরক্ষীয় কক্ষপথ: যখন কোন একটি উপগ্রহের কক্ষপথ পৃথিবীর নিরক্ষীয় তলের প্রলম্বিত তলে অবস্থান করে থাকে তাকে নিরক্ষীয় কক্ষপথ বলে।অর্থাৎ নিরক্ষীয় কক্ষপথ পৃথিবীর নিরক্ষরেখার সঙ্গে   শূন্য ডিগ্রী বা শূন্যের কাছাকাছি কোন করে অবস্থান করে। 

মেরু কক্ষপথ: পৃথিবীর কেন্দ্র এবং উভয় মেরু সম্বলিত কক্ষপথ কি হলো মেরু কক্ষপথ।

কক্ষপথের নতি: কক্ষপথের সমতল এবং নিরক্ষীয় সমতলের মধ্যবর্তী কোণটি কক্ষপথের নতি নামে পরিচিত। একটি নিরক্ষীয় কক্ষপথের নতি 0° এবং মেরু কক্ষপথের  নতি 90°।

আনত কক্ষপথ: যখন একটি কক্ষপথের নতি  0° বেশি এবং 90°  কম হয় তখন তাকে আনত কক্ষপথ  হিসেবে  বিবেচনা করা হয়।  যখন  কক্ষপথের  নতির মান  90° এর কাছাকাছি কাছাকাছি হয় তখন তাকে  মেরু নিকটবর্তী কক্ষপথ বলে।  আবার যখন সেই মান 0° কাছাকাছি হয় তখন তাকে নিরক্ষীয় নিকটবর্তী কক্ষপথ বলে।

অরবিটাল পিরিয়ড বা কক্ষপথের পর্যায়: একটি স্যাটেলাইট তার কক্ষপথে  পৃথিবী কেএকটি সম্পূর্ণ  পরিক্রমনের জন্য যে সময় নেয় তাকে অরবিটাল পিরিয়ড বা পিরিয়ড বা পর্যায় বলে।

3. পাথ বা গ্রাউন্ড ট্র্যাক:

একটি স্যাটেলাইট  আকাশ পথে পরিভ্রমণ করার সময় পৃথিবী  পৃষ্ঠা যে অংশটি কে দেখে  বা  ট্রাক করে তাকে তার পথ বা স্থল ট্র্যাক বলা হয়।

সোয়াথ: একটি  কৃত্রিম উপগ্রহের সেন্সর  বা সংবেদক দ্বারা দ্বারা আচ্ছাদিত গ্রাউন্ড ট্র্যাকের এলাকার মোট প্রস্থকে সোয়াথ বা ফিল্ড অব ভিউ (FOV) বলা হয়। 

সারি: উপগ্রহের স্ক্যানার দ্বারা ভূপৃষ্ঠে গ্রাউন্ড ট্রাক স্ক্যান করার সময় চিত্রের একটি ফ্রেমের অনুপ্রস্থ মধ্যরেখা  বরাবর  এক একটি পথকে একটি সারি বলা হয়।

পুনরাবৃত্তি চক্র: এক একটি স্যাটেলাইট যে নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধান তার পথ পুনরাবৃত্তি করে তাকে স্যাটেলাইটের পুনরাবৃত্তি চক্র বলা হয়।

4. নাদির পয়েন্ট ও নাদির লাইন:

একটি স্যাটেলাইট স্ক্যানারের ঠিক নিচে ভূপৃষ্ঠের  বিন্দুটি কে  নাদির পয়েন্ট বলে। গ্রাউন্ড ট্র্যাকের নাদির পয়েন্ট বরাবর অনুদৈর্ঘ্য রেখাটি  কে নাদির লাইন  বলে।

স্যাটেলাইটের ধরন:-

1. পৃথিবী থেকে কক্ষপথের উচ্চতা অনুযায়ী: 

Earthobservatory.nasa.gov প্রদত্ত শ্রেণীবিভাগ অনুযায়ীউচ্চতা অনুসারে কক্ষপথগুলি প্রধানত তিন প্রকার।

1. উচ্চ  কক্ষপথ: (পৃথিবীর পৃষ্ঠ থেকে, 35,780 কিলোমিটার): অনেক আবহাওয়া উপগ্রহ এবং কিছু যোগাযোগ উপগ্রহের উচ্চ কক্ষপথ রয়েছে।

2. মাঝারি কক্ষপথ: (পৃথিবীর পৃষ্ঠ থেকে 2000 থেকে 35780 Km): এই উপগ্রহগুলির গ্রুপ নেভিগেশন এবং বিশেষ উদ্দেশ্যে কাজ করে এবং একটি নির্দিষ্ট অঞ্চল পর্যবেক্ষণ করার জন্য ডিজাইন করা হয়।

3. নিম্ন কক্ষপথ: (পৃথিবীর পৃষ্ঠ থেকে ≤ 2000 km): অধিকাংশ বৈজ্ঞানিক উপগ্রহ এই গ্রুপে রয়েছে। নাসার আর্থ অবজারভিং সিস্টেম এর একটি উদাহরণ।

নিম্ন কক্ষপথের উপগ্রহগুলি পৃথিবীর  অনেক কাছাকাছি চলে আসে। সুতরাং, মাধ্যাকর্ষণ টান শক্তিশালী হয়। সেজন্য এই  শ্রেণীর   উপগ্রহগুলি অধিক দ্রুতগতিতে  পৃথিবী পরিক্রমণ করে। উদাহরণস্বরূপ, নাসার অ্যাকোয়া স্যাটেলাইটটি পৃথিবী থেকে 705 কিলোমিটার উপরে থেকে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করতে প্রায় 99 মিনিট সময় নেয়। 

বিপরীতভাবে উচ্চ কক্ষপথের উপগ্রহগুলি ধীর গতিতে চলে। পৃথিবীর পৃষ্ঠ থেকে 36,000 কিলোমিটার দূরে একটি আবহাওয়া উপগ্রহ একটি কক্ষপথ পরিভ্রমণ সম্পন্ন করতে প্রায় 24 ঘন্টা সময় নেয়। একইভাবে পৃথিবীর কেন্দ্র থেকে প্রায় 3,84,000 কিলোমিটার দূরত্বে, চাঁদ 28 দিনে একটি একক কক্ষপথ পরিভ্রমণ সম্পন্ন করে।

2. আপেক্ষিক গতি এবং কক্ষপথের নতি অনুযায়ী:

1. জিওসিনক্রোনাস স্যাটেলাইট  বা ভূসমলয়  উপগ্রহ: এই ধরনের কৃত্রিম উপগ্রহ গুলি একটি বৃত্তাকার বা উপবৃত্তাকার কক্ষপথে  পৃথিবীর পরিক্রমণ করে, যা পৃথিবীর আবর্তনকালের সাথে শূন্য বা শূন্যের কাছাকাছি সময়ের সাথে সিঙ্ক্রোনাইজ করা হয়,  তাই এদেরকে  জিওসিংক্রোনাস স্যাটেলাইট বলে । যখন 0°  নতির বৃত্তাকার কক্ষপথ বরাবর উপগ্রহগুলি পৃথিবীর পরিক্রমণ করে এবং পৃথিবীর ঘূর্ণনের সাথে    একই সময়ে তার পরিক্রমণ সম্পন্ন হয়, তখন পৃথিবী পৃষ্ঠ থেকে উপগ্রহটি কে স্থির দেখায় বলে এদেরকে ভূসমলয় ভূস্থির উপগ্রহ বলে। 

জিওস্টেশনারি কক্ষপথ 36,000 কিমি উচ্চতায় অবস্থিত। এই উপগ্রহগুলি সর্বদা পৃথিবীতে একই  এলাকা এবং বড় এলাকা দেখার জন্য  ব্যবহৃত হয়। আবহাওয়া স্যাটেলাইট এই গ্রুপের একটি উপযুক্ত উদাহরণ। ভারতীয় ইনস্যাট সিরিজের উপগ্রহও এই শ্ৰেণীতে রয়েছে।

2. সান সিনক্রোনাস  স্যাটেলাইট  বা সূর্য-সমকালীন উপগ্রহ: এই  উপগ্রহগুলি একটি বৃত্তাকার বা উপবৃত্তাকার মেরু বা কাছাকাছি-মেরু কক্ষপথে   ঘুরতে থাকে, যা পৃথিবীর প্রতিটি এলাকায় দিনের  একটি স্থির  বা  নির্দিষ্ট স্থানীয় সময়ের অতিক্রম করে, তাই এদেরকে  সান-সিঙ্ক্রোনাস স্যাটেলাইট  বা সূর্য-সমকালীন উপগ্রহ বলে। নিম্ন এবং মাঝারি  উচ্চতার কক্ষপথের সমস্ত উপগ্রহ এই গ্রুপে রয়েছে। পৃথিবী পর্যবেক্ষণ উপগ্রহ যেমন Landsat, SPOT, IRS সাধারণত সূর্য-সমকালীন উপগ্রহ।

সেন্সর বা সংবেদক কি? 

একটি সেন্সর হল উপগ্রহ  সংযুক্ত একটি যন্ত্র, মেশিন বা সাব -সিস্টেম ব্যবহার যা পর্যবেক্ষণ করে এবং এর সাথে যুক্ত অন্যান্য ইলেকট্রনিক সার্কিটারে তথ্য পাঠায়। এর প্রধানত দুটি অংশ বা উপাদান রয়েছে। এগুলি হল অপটিক্যাল উপাদান বা সিস্টেম এবং ডিটেক্টর।

একটি সেন্সরের গুণমান নির্ভর করে তার পারফরম্যান্সের উপর  

• স্থানিক রেজোলিউশন (যে ক্ষুদ্রতম বৈশিষ্ট্যের আকার  এক একটি পিক্সএল   এর মাধ্যমে  সনাক্ত করা যায়):

• বর্ণালী রেজোলিউশন (ইমেজ অধিগ্রহণে নিযুক্ত তরঙ্গদৈর্ঘ্য ব্যান্ড):

• রেডিওমেট্রিক রেজোলিউশন (সংকেত শক্তির পার্থক্য পিক্সেলের একটি সংখ্যা দ্বারা প্রতিনিধিত্ব করা হয়):

• সাময়িক রেজোলিউশন (পুনরাবৃত্তিমূলক কভারেজের ফ্রিকোয়েন্সি): এটি পূর্বনির্ধারিত স্যাটেলাইট গতির উপর নির্ভর করে।

সেন্সরের প্রকার:-

1. উৎস অনুযায়ী: 

 তাদের শক্তির উৎস অনুযায়ী সেন্সর প্রধানত দুই প্রকার। সক্রিয় এবং নিষ্ক্রিয়।

•  সক্রিয় সেন্সর: সেন্সর যা লক্ষ্য বস্তুর প্রতিফলিত প্রতিক্রিয়া সনাক্ত করে যা কৃত্রিম উৎস থেকে বিকিরণ করা হয়। রাডার (রেডিও ডিটেকশন অ্যান্ড রেঞ্জিং) লিডার (লাইট ডিটেকশন অ্যান্ড রেঞ্জিং) অথবা ফ্ল্যাশ লাইট সহ ক্যামেরা প্রকৃতি এই ধরনের সেন্সর এর উদাহরণ।

প্যাসিভ সেন্সর: এই সকল সেন্সর প্রাকৃতিক উৎস থেকে প্রতিফলিত বা নির্গত ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক বিকিরণ সনাক্ত করে।  ফ্ল্যাশ লাইট ছাড়া সব রিমোট সেন্সিং সেন্সর বা ক্যামেরা যখন দিনের আলোতে ছবি তোলে তখন তা ব্যতীত সেন্সর হিসাবে বিবেচিত হয়।

অন্যান্য সেন্সর:  রিমোট সেন্সিং এর বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত কিছু অন্যান্য সেন্সর। এগুলি হল প্যানোরামিক ক্যামেরা, মাইক্রোওয়েভ রেডিওমিটার এবং অপটিক্যাল স্ক্যানার। 

2.  ব্যবহার অনুযায়ী:

  1. এরিয়াল ক্যামেরা:
  • এগুলি একক লেন্স,
  • মাল্টি লেন্স,  ও
  • স্ট্রিপ ক্যামেরা   প্রভৃতি হয়ে থাকে । 

2. ইলেকট্রনিক ক্যামেরা

3. মাল্টি স্পেকট্রাল স্ক্যানার (এমএসএস)

  • Whiskbroom MSS 
  • Push broom MSS

4. তাপীয় স্ক্যানার

5. মাইক্রোওয়েভ সেন্সর

  • রাডার
  • লিডার

6. মাইক্রোওয়েভ রেডিওমিটার

7. মাইক্রোওয়েভ স্ক্যানিং রেডিওমিটার

উদাহরণস্বরূপ, বিভিন্ন ধরণের স্ক্যানারের ব্যবহার  লক্ষ্য করা যায়- 

ল্যান্ডস্যাট 1, 2, এবং 3 বহুমুখী স্ক্যানার (এমএসএস) বহন করে;

 ল্যান্ডস্যাট 4 এবং 5 একটি থিম্যাটিক ম্যাপার সেন্সর (টিএম) বহন করে;

 ল্যান্ডস্যাট 7 একটি উন্নত থিম্যাটিক বহন করে;

ম্যাপার (ইটিএম); ল্যান্ডস্যাট 8 অপারেশনাল ল্যান্ড ইমেজার (ওএলআই) বহন করে

3. সেন্সরের গুণমান অনুযায়ী:

1. স্পেশাল রেজোলিউশন বা স্থানে বিভেদন  অনুসারে:

• কম রেজোলিউশন সিস্টেম (প্রায় 1 কিমি বা তার বেশি)

• মাঝারি রেজোলিউশন সিস্টেম (প্রায় 100 মিটার থেকে 1 কিমি)

• উচ্চ রেজোলিউশন সিস্টেম (প্রায় 5 মিটার থেকে 100 মিটার)

• খুব উচ্চ রেজোলিউশন সিস্টেম (প্রায় 5 মিটার বা তার কম)

2. বর্ণালী বিভেদন  অনুসারে:

• অপটিক্যাল ইমেজিং সিস্টেম (দৃশ্যমান, ইনফ্রারেড, এবং শর্টওয়েভ ইনফ্রারেড অন্তর্ভুক্ত)

• প্যানক্রোম্যাটিক বা মনো-বর্ণালী (একক তরঙ্গদৈর্ঘ্য ব্যান্ড, কালো এবং সাদা, গ্রেস্কেল ইমেজ) সিস্টেম

• মাল্টিস্পেক্ট্রাল (বেশ কয়েকটি বর্ণালী ব্যান্ড) সিস্টেম

• সুপার-বর্ণালী (দশক বর্ণালী ব্যান্ড) সিস্টেম

• হাইপার-স্পেকট্রাল (শতক বর্ণালী ব্যান্ড) সিস্টেম

• সিনথেটিক অ্যাপারচার রাডার (SAR) ইমেজিং সিস্টেম

• একক-ফ্রিকোয়েন্সি {এল-ব্যান্ড (1-2 গিগাহার্জ), অথবা সি-ব্যান্ড (4–8 গিগাহার্জ), অথবা এক্স-ব্যান্ড (8 থেকে 12 গিগাহার্জ);

•একাধিক ফ্রিকোয়েন্সি (দুই বা ততোধিক ফ্রিকোয়েন্সি ব্যান্ডের সমন্বয়)

• একক মেরুকরণ (VV- উল্লম্ব প্রেরণ এবং উল্লম্ব প্রাপ্তির জন্য, অথবা HH- অনুভূমিক প্রেরণ এবং অনুভূমিক গ্রহণ, অথবা HV- অনুভূমিক প্রেরণ এবং উল্লম্ব প্রাপ্তির জন্য;

• একাধিক মেরুকরণ (দুই বা ততোধিক মেরুকরণের মোডের সমন্বয়)

• থার্মাল ইমেজিং সিস্টেম

সম্পর্কিত বিষয়

Leave a Reply

Your email address will not be published.