Sea Expedition of Columbus | কলম্বাসের সমুদ্র অভিযান

Introduction: –

Christopher Columbus was born in 1451 in the house of Tati, a native of Genoa, Italy. In Europe, the Middle Ages began to decline. People are gradually becoming interested in the practice of knowledge outside of Christian theology. Columbus moved to Padua, a port city in northeastern Italy, near Venice. The study started there. Growing up, he studied astronomy, geology, etc., and Christian theology at the university. It is here that Columbus dreams of seeing a new country, new lands, and new cities.

Italy was surrounded by the Mediterranean Sea. He was surrounded by Asia, Africa, and Europe. That is, the Mediterranean Sea was a huge closed lake. So, after completing his studies in search of the open sea, he set out in 1470, crossing the Tagus River to Lisbon, the capital of Portugal. Lisbon was then called Henry the Navigator. Because King Henry was born here, he was very enthusiastic about sea expeditions in those days. Lisbon was a river and seaport together. In front is the Atlantic Ocean. Here Columbus married a wealthy Portuguese woman. He lived on a small Atlantic island called Madeira. Seeing the vast expanse of the Atlantic, he began to imagine the shores on the other side. Portugal was then quite adept at shipping. Portugal is sending multiple expeditions to the coast of Africa. Hearing this, Columbus set out on the Gold Coast of South Africa and Iceland in the north. The main purpose of saving experience about the sea. Arriving in Iceland, Columbus first learned that the Viking tribes of Norway had reached an unknown land on the other side of the sea about 400 years ago. However, they could not stay there in conflict with each other for long. It was a huge country in the western hemisphere. Columbus can learn more in the story that there is a lot of gold in the country that is found in the river.

Columbus decided to go to this unknown country. But he wants huge money for long sea expeditions. He first went to the King of Portugal for help. The condition was that if successful, Columbus and his descendants should be given aristocratic status. And he will get one-tenth of the accumulated wealth. There were not many demands but the king disagreed. Columbus came to the courts of England and France with the same proposal, but all turned away. No one could trust such an impossible plan and no one agreed to give their child the status of nobility.

But Columbus is not the one to give up. This time he appeared before the king of Spain. Gave an additional offer across. He will preach Christianity in the new country. Spain was then engaged in the eradication of Islam and the propagation of Christianity from its soil. This time Queen Isabella was impressed. The Queen of Spain agrees to help Columbus.

First Expedition: –

Columbus crossed the Atlantic Ocean a total of four times. The first voyage was on August 3, 1492. Columbus jumped into the deep water with three ships (Santamaria, Pinta, and Nina) and 99 sailors with government help. The journey started from the port of Palos. Relatives of the sailors gathered. The wailing began not in the sound of victory but in the uncertainty of whether he would be able to return.

The ship sailed on the known waters – first to the southwest of the Canary Islands, then eastward to the west in the wind direction. But we had to wait a long time for the wind in the canary. Finally, on September 4, the wind blew across the ship. After 10 days in a row, the wind blew. Columbus calmed the sailors by telling them stories of how much gold they could get when they arrived in a new country when everyone on board was restless. When the wind blows again, the ship moves forward, this is how the journey continues.

Finally, on October 12, 1492, Columbus landed on an unknown green island. He thought this was the coast of the so-called Indies described by Marco Polo. It was later discovered that it was the Bahamas or Guanahani Island.

Several locals attended to see Columbus and his associates. Their skin color is copper, their bodies are half-naked, and their neck and ears are adorned with gold jewelry. Columbus is overwhelmed to see gold jewelry. Now it’s your turn to search. For three days Columbus led sailors from one side of the Bahamas to the other. There was no way to hear about gold from the people of the island because of language problems.

Meanwhile, the ship Santamaria was wrecked by a strong storm and the water began to rush in. Local residents rescued the sailors. Martin Alonso Pinzon, the captain of the Pinta ship, suddenly disappeared without informing Columbus. In fact, he set sail for Spain in a bid to give the news of the discovery of the Golden Land to the king first. Columbus left 40 sailors in Santa Maria and Nina boarded the ship with the rest.  The island on which 40 sailors began to settle was named La Navidad.

This time Columbus went from one island to another. The first island was named San Salvador, the second island was named Santa Maria, the third island was named Ferdinand, and the fourth island was named Isabella. This time he came to a big island on 27th October. Its name is Cuba. Then he arrived in Haiti. Columbus named Haiti the Spanish island…

Meanwhile, the logistics gradually decreased. Columbus decided to return home. Finally left on 27 December. In the middle of the storm, Nina’s ship sank. No one had any hope of survival. Columbus returned to Lisbon, Portugal on March 4, 1493, with a broken body. The King and Queen of Spain spoke on May 20 about whether Columbus was given state honors and Columbus was granted the right to rule the discovered islands. He also promised to help in the second campaign.

Second Expedition:-

Columbus’s second expedition began in September 1493. Accompanied by 17 ships, 1,200 to 1,500 white Christians interested in immigration, 5 priests who could help with the conversion, and hundreds of soldiers to seize and plunder the wealth, but with no women. Although the organization of the second expedition was so large, there was no way to record the details of the expedition. So nothing special in detail is known about Columbus’s 2nd expedition.

It is known from the brief details of the companions that they first reached an island called Zaminika on November 3, 1493. Man-eaters live there. Then on November 28 go to La Navidad Island. Last time Columbus left 40 sailors there. Columbus saw the castle destroyed, and the scattered corpses of Christians lying around. Columbus quickly left the island and came to Hispaniola. He brought down those who were brought here for immigration. Christian left the priests to preach Catholicism. This time he went to Cuba. A few days later he returned to the island of Hispaniola. This time Columbus got involved in a dispute with the locals. Soldiers captured and killed countless Red Indians.

Columbus built forts on almost all the islands and forced the locals to collect gold. He ordered every resident over the age of 14 to deposit three fingers of gold every three months. Residents who could not deposit gold were ordered to have their noses and ears cut off. In June 1496, Columbus returned to Spain. He brought with him hundreds of Red Indian prisoners.

Third Expedition: –

In the first and second expeditions, Columbus could not reach the mainland. Only a few islands in the Caribbean Sea were able to occupy and rule. The third expedition set sail from the civil port on May 30, 1498, seeking to enter the mainland. This time he took six ships with him. This time he descended to the 70-degree axis to the south. Then proceeded west. Finally, on August 1, he landed on the shores of a new continent. He named the arrow Holy Trinity. He wandered the coast for three weeks. Departed for Hispaniola on 22 August. On the way, he saw the colors in the west were more beautiful and green. He first thought it was not an island, but a huge continent. On 24 August he arrived at the port of Santo Domingo. This port was built by Columbus’ brother Bartholomew, whom Columbus left on the second expedition. What will happen if the port is well furnished, protests and revolts are going on inside.  And the persecution of Bartholomew in the name of suppressing the protests is going on. This angered both whites and Red Indians. Columbus was forced to send two ships back to Spain in October 1496 to protest. That did not save the end. Columbus and his two brothers were taken, prisoner. They were deported back to Spain in October 1500.

Fourth Expedition: –

Columbus returned to the country at the end of the third expedition but remained in prison for about a month and a half. He was released on December 12, 1500. The Queen of Spain forgave Columbus for his dream of getting a lot of gold from the new country in the future.

Columbus did not sit still. He wrote two books. The first one is called ‘Privilege’ and the second one is called ‘Bhavishyadani’. The subject of the first book was similarly deprived of the earnings, titles, and prizes due to Columbus by the King and Queen of Spain. He handed over the book to influential Spanish representatives and merchants. At the same time, he appealed to the royal court again. This second book is incomplete. Here is a trace of Columbus’s personality.

Permission for the fourth expedition came from the king on 26 February 1502. The permit had two conditions. Firstly, you can’t go to Hispanic, 2ndly, you will have detailed information about what you got wherever you go. Go with an accountant for this. Charlene Columbus was ready in two months without delay. He sailed with four ships and 143 sailors on May 9, 1502, accompanied by his son Fernando.

Columbus’s fourth expedition was devastated by a natural disaster. He was barred from going to Hispaniola but reached the port of Santodomingo in a severe storm. He sought permission for the shelter but did not get permission. On the night of June 30, there was a strong storm. Columbus’s ships were swept away. Many sailors died. Columbus managed to save his ship and sailed to the coast of Jamaica. He then sailed along the coasts of Honduras and Nicaragua to a place called Veragua. He returned to Jamaica a few days ago. When he came here, he became very ill. He lost the ability to walk. Finally, in June 1504, a ship named Hispaniola rescued the ailing Columbus and his companions. The governor of the forbidden area for him is given shelter. After a break in the middle, Columbus Fernando and 23 others set off for Spain. Columbus probably returned to Sanlucar de Barrameda on November 7, 1504. Shortly afterward, Queen Isabella, Columbus’s chief patron, died. The story of Columbus’s fourth expedition is very public.

Columbus was rich. He was one of the richest men in all of Europe in this era. In a sick body on 19 May 1506, he bequeathed all the property to his son and brother in a will. The next day 20 May Columbus died.

Evaluation: –

Columbus’ voyage, though quite interesting and colorful with its many ups and downs, did not leave the controversy behind. A group of historians has seen Columbus as a cruel and brutal administrator. This description is found in the pages of the ‘History of Indiza’, in the book of Bartolome Kansas, the historian of Spain. The story of Columbus’s expedition shows that he never accepted the locals as a people. Indigenous people cut into pieces to test the edge of knives and swords. Innocent children were beheaded. Columbus wiped out a large part of those whom he named Red Indians. 

There is evidence that many discoverers went to America even before Columbus. So it is also true that Columbus didn’t discover a new world. There was a civilization before Columbus. Muslim sailors also went to America before and after Columbus, but none of them were as brutal as Columbus. But history is sometimes quite cruel. Even after 500 years, Columbus, who has taken the place of the great man of history, is being torn to shreds by his identity as an anti-people dictator and barbaric ruler.

কলম্বাসের সমুদ্র অভিযান

ভূমিকা:-

ইতালির জেনোয়ার জাতির এক তাতির ঘরে 1451 সালে ক্রিস্টোফার কলম্বাস জন্মগ্রহণ করেন | ইউরোপে তখন মধ্যযুগের অস্তাচলের শুরু | মানুষ ক্রমশ খ্রিস্টান ধর্মতত্ত্বের বাইরে জ্ঞান চর্চায় আগ্রহী হচ্ছে | এই বাতাবরণের কলম্বাস উত্তর-পূর্ব ইতালির বন্দরনগর পাদোয়াতে অর্থাৎ ভেনিস এর কাছে চলে যান | সেখানে শুরু হয় বিদ্যাচর্চা l বড় হয়ে সেখানকার বিশ্ববিদ্যালয়ে খ্রিস্টান ধর্ম তত্ত্বের সঙ্গে জ্যোতির্বিদ্যা, ভূবিদ্যা প্রভৃতি পড়াশোনা করেন | এখানেই কলম্বাস স্বপ্ন দেখেন  নতুন দ্বীপ,নতুনদেশ ,নতুন নগর দেখার l

ইতালির চারপাশে ছিল ভূমধ্যসাগর | তার চারিদিকে ছিল এশিয়া, আফ্রিকার ও  ইউরোপ l অর্থাৎ ভূমধ্যসাগর ছিল আবদ্ধ বিশাল হ্রদ l তাই উন্মুক্ত সাগরের সন্ধানে পড়াশোনা শেষ করে বেরিয়ে পড়লেন 1470 সালে l তাগুস নদীর স্রোত ধরে পৌছলেন পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে l তখন লিসবনকে বলা হতো হেনরি দ্য নেভিগেটর l কারণ রাজা হেনরি এখানে জন্মে ছিলেন, তিনি তখনকার দিনে সমুদ্র অভিযান কে খুব উৎসাহিত করেছিলেন l লিসবন ছিল একসাথে নদী ও সমুদ্র বন্দর l সামনে আদিগন্ত আটলান্টিক মহাসাগর  ডাকছে l এখানে এক বড়লোক পর্তুগিজ মহিলাকে বিয়ে করলেন কলম্বাস l বাস করলেন মাদেইরা নামক আটলান্টিকের এক ছোট্ট দ্বীপে l সামনে বিস্তীত আটলান্টিকের জলরাশি দেখে ওপারের ডাঙার কথা কল্পনা করতে লাগলেন l পর্তুগাল তখন নৌপরিবহনে বেশ পারদর্শী l আফ্রিকার উপকূলে একাধিক অভিযান পাঠাচ্ছে পর্তুগাল l এসব শুনে কলম্বাস বেরিয়ে পড়লেন দক্ষিণ আফ্রিকার গোল্ড কোস্ট ও উত্তরে আইসল্যান্ড অবধি | সমুদ্র সম্বন্ধে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় মূল উদ্দেশ্য l আইসল্যান্ড এসে কলম্বাস প্রথমে জানতে পারলেন প্রায় 400 বছর আগেই নরওয়ের ভাইকিং উপজাতিরা সমুদ্রের ওপারে কোন এক অজানা দেশে পৌঁছেছিলেন  l তবে তারা নিজেদের মধ্যে বিবাদে বেশিদিন থাকতে পারেননি সেখানে l সেটি ছিল পশ্চিম গোলার্ধের এক বিরাট দেশ l গল্পকথায় কলম্বাস আরো জানতে পারেন সে দেশে রয়েছে প্রচুর সোনা, সোনা পাওয়া যায় নদীতে l

কলম্বাস মনস্থির করলেন এই অজানা দেশে যেতে হবে l কিন্তু দীর্ঘ সমুদ্র অভিযানে চাই বিশাল টাকা l সে জন্য প্রথমেই গেলেন সাহায্যের জন্য পর্তুগালের রাজা দ্বিতীয় জনের কাছে l শর্ত ছিল সফল হলে কলম্বাস কে এবং তার বংশধর কে অভিজাত্যের মর্যাদা দিতে হবে l আর সংগৃহীত সম্পদের দশভাগের একভাগ হবে তার প্রাপ্য l খুব বেশি দাবি ছিল না কিন্তু রাজা রাজি হলেন না l কলম্বাস ইংল্যান্ড ও ফ্রান্সের দরবারে একই প্রস্তাব নিয়ে হাজির হলেন, কিন্তু সবাই মুখ ঘুরিয়ে নিলেন l কেউ এমন অসম্ভব পরিকল্পনায় আস্থা রাখতে পারেননি এবং তাদের সন্তানকে আভিজাত্যের মর্যাদা দিতে সম্মত কেউ হয়নি l

 কিন্তু কলম্বাস হাল ছাড়ার পাত্র নন l এবার তিনি হাজির হলেন স্পেনের রাজার কাছে l অতিরিক্ত একটি প্রস্তাব জুড়ে দিলেন l তিনি নতুন দেশে খ্রিস্টধর্ম প্রচার করবেন l স্পেন তখন তার মাটি থেকেই ইসলাম ধর্ম নির্মূল এবং খ্রিস্ট ধর্ম প্রচারের কাজে ব্যস্ত ছিল l এবার রানী ইসাবেলা প্রভাবিত হলেন l স্পেনের রাজা রানী রাজি হলেন কলম্বাস কে সাহায্য করার জন্য l

প্রথম অভিযান:-

কলম্বাস মোট চারবার আটলান্টিক মহাসাগর পারাপার করেন I প্রথমবারের যাত্রা ছিল 1492 সালে 3 আগস্ট l সরকারি সাহায্য পেয়ে তিনটি জাহাজ (সান্তামারিয়া, পিন্তা ও নিনা) ও 99 জন নাবিক নিয়ে অথৈ জলে লাফিয়ে পড়লেন কলম্বাস l যাত্রা শুরু হলো পালোস বন্দর থেকে l জড়ো হয়েছিল নাবিকদের আত্মীয়-স্বজনরা l জয় ধ্বনিতে নয় হাহাকার শুরু হয়েছিল, আর ফিরে আসতে পারবে কিনা এই অনিশ্চয়তায় l

জাহাজ চলল চেনা জলপথে- প্রথমে দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জ দিকে, তারপর বাতাসের অভিমুখী পূর্ব থেকে সোজা পশ্চিমে l তবে বাতাসের জন্য অনেকদিন অপেক্ষা করতে হয়েছিলো ক্যানারি তে l অবশেষে 4 সেপ্টেম্বর জাহাজের পালে লাগলো হাওয়া l টানা 10 দিন পর বাতাস ঝিমিয়ে পড়লো l জাহাজের সবাই অস্থির হলে নতুন দেশে পৌঁছলে কত সোনারূপো পাওয়া যাবে তার গল্প বলে নাবিকদের শান্ত করে দিতেন কলম্বাস l আবার বাতাস বইলে জাহাজ এগোয়, এভাবেই চলতে থাকে সফর l

অবশেষে 1492 সালের 12 অক্টোবরে কলম্বাস নামলেন এক অজানা সবুজ দ্বীপে l ভাবলেন এটাই মার্কোপোলোর বর্ণনায় কথিত ইন্ডিয়ার উপকূল l পরে জানা যায় এটি ছিল বাহামাস বা গুয়ানাহানি দ্বীপ l

কলম্বাস ও সহযোগীদের দেখে উপস্থিত হয় বেশ কয়েকজন স্থানীয় অধিবাসী I তাদের গায়ের রং তামাটে, দেহ অর্ধনগ্ন, গলায় ও কানে সোনার গয়না l কলম্বাস সোনার গহনা দেখি উচ্ছ্বসিত l এবার খোঁজার পালা l তিনদিন ধরে কলম্বাস নাবিকদের নিয়ে বাহামার দ্বীপের  একদিক থেকে অন্য দিকে চালাল  অনুসন্ধান l ভাষাগত সমস্যার জন্য দ্বীপবাসীদের থেকেও সোনার কোনো হদিস পাওয়া গেল না l

এদিকে সান্তামারিয়া জাহাজ প্রবল ঝড়ে ভেঙে গেল এবং হুড়মুড়িয়ে জল ঢুকতে লাগল l স্থানীয় বাসিন্দারা নাবিকদের উদ্ধার করল l আর পিন্তা জাহাজের ক্যাপ্টেন মার্টিন আলনসা পিনজন কলম্বাসকে কিছু না জানিয়ে হঠাৎ বেপাত্তা l আসলে সোনার দেশ আবিষ্কার এর খবর রাজার কাছে প্রথমে পৌঁছে দেবার লোভে জাহাজ নিয়ে স্পেন অভিমুখে যাত্রা করেছিলেন তিনি l অগত্যা কলম্বাস 40 জন নাবিককে   শান্তা মারিয়ায় রেখে বাকিদের নিয়ে নিনা জাহাজে উঠলেন l এই যে দ্বীপে 40 জন নাবিক কে রেখে বসতি স্থাপনের সূত্রপাত করলেন তার নাম দিয়েছিলেন লা-নাভিদাদ l

কলম্বাস এবার এক দ্বীপ থেকে অন্য দ্বীপ গেলেন l প্রথম যে দ্বীপে পাড়ি দেন তার নাম দিলেন সান-সালভাদোর, দ্বিতীয় দ্বীপের নাম দেন শান্তা মারিয়া, তৃতীয় দ্বীপের নাম দেন ফার্দিনান্দ আর চতুর্থ দ্বীপের নাম রাখেন ইসাবেলা l এবার একটা বড় দ্বীপে এলেন 27 অক্টোবর l এর নাম কিউবা l তারপর পৌঁছন হাইতিতে l হাইতিকে কলম্বাস নাম দিলেন হিস্পানিওয়ালা বা স্পেনের দ্বীপ l

এদিকে রসদ ক্রমশ কমে এলো I কলম্বাস মনস্থির করলেন দেশে ফেরার l অবশেষে 27 ডিসেম্বর রওনা হলেন l মাঝপথে প্রবল ঝড়-ঝঞ্ঝায় পড়ল নিনা জাহাজ l কারুর বাঁচার আশা ছিল না l কোনক্রমেই ভগ্ন শরীরে পর্তুগালের লিসবনে ফিরলেন কলম্বাস 1493 সালের 4 মার্চ l স্পেনের রাজা-রানী কথা রাখলেন l 20 মে কলম্বাসকে রাষ্ট্রীয় সম্মান দেওয়া হল এবং আবিষ্কৃত দ্বীপগুলির বংশানুক্রমিক শাসনের অধিকার পেলেন কলম্বাস l সেই সঙ্গে দ্বিতীয় অভিযানের সবরকম সাহায্যের প্রতিশ্রুতি পেলেন l

দ্বিতীয় অভিযান:-

কলম্বাসের দ্বিতীয় অভিযান শুরু হয় 1493 সালের সেপ্টেম্বরে I সঙ্গে পেলেন 17 টি জাহাজ, অভিবাসনে আগ্রহী 1200 থেকে 1500 শ্বেতাঙ্গ খ্রিস্টান, ধর্মান্তকরণের সাহায্য করতে পারেন 5 জন ধর্মযাজক  এবং ধন সম্পদ দখল ও লুণ্ঠনের জন্য কয়েকশ সৈনিক,তবে সঙ্গে ছিলনা কোন নারী l দ্বিতীয় অভিযানের আয়োজন এত বিশাল থাকলেও অভিযানের বিবরণ লিখে রাখার কোনো ব্যবস্থা ছিল না l তাই কলম্বাসের দ্বিতীয় অভিযান সম্বন্ধে বিশেষ কিছু জানা যায় না l তবে সহযাত্রীদের অল্প বিবরণ থেকে জানা যায় 1493 সালের 3 নভেম্বর প্রথম তারা জমিনিকা নামে এক দ্বীপে পৌঁছান l সেখানে নরখাদকদের বাস l এরপর 28 নভেম্বর যান লা নাভিদাদ দ্বীপে l সেখানে গতবার কলম্বাস 40 জন নাবিক কে রেখে গিয়েছিলেন l কলম্বাস দেখলেন দুর্গ বিধ্বস্ত,আর চারিদিকে পড়ে আছে খ্রিস্টানদের ছিন্নবিচ্ছিন্ন মৃতদেহ l কলম্বাস তাড়াতাড়ি এই দ্বীপ ত্যাগ করে এলেন হিস্পানিওলা দ্বীপে l. I খ্রিস্টান ক্যাথলিক ধর্ম প্রচারের জন্য যাজকদের রেখে গেলেন l এবার তিনি চললেন কিউবাতে l কিছুদিন পর আবার ফিরে এলেন হিস্পানিওলা দ্বীপে l এবার জড়িয়ে পড়লেন স্থানীয় অধিবাসীদের সঙ্গে বিবাদে l সৈনিকরা অজস্র রেডইন্ডিয়ান কে বন্দী করল এবং হত্যা করল l

কলম্বাস প্রায়ই সব দীপে দুর্গ তৈরি করলেন এবং সোনা সংগ্রহের জন্য স্থানীয় অধিবাসীদের কে জোর করলেন l 14 বছরের উপর প্রত্যেক অধিবাসীকে আদেশ দিলেন তিন মাস অন্তর সবাই যেন নিজ আঙ্গুল পরিমাণ সোনা জমা দেবে l যে সমস্ত অধিবাসীরা সোনা জমা দিতে পারবে না তাদের নাক কান কেটে নেওয়ার বিধান দেওয়া হল l 1496 সালের জুন মাসে কলম্বাস স্পেনে ফিরে আসেন l সঙ্গে নিয়ে এলেন ধন-সম্পদ শহ কয়েকশো বন্দী ইন্ডিয়ান l

তৃতীয় অভিযান:-

প্রথম ও দ্বিতীয় অভিযানে কলম্বাস মূল ভূখণ্ডে পৌঁছতে পারেননি l কেবল ক্যারিবিয়ান সমুদ্রের কয়েকটি দ্বীপ অধিকার ও শাসন করতে পেরেছিলেন l তৃতীয় অভিযানের মূল ভূখণ্ডের ঢোকার বাসনায় সিভিল বন্দর থেকে যাত্রা শুরু করলেন 1498 সালের 30 মে l এবার সঙ্গে নিলেন ছটি জাহাজ l এবার তিনি দক্ষিণ দিকে 70 ডিগ্রি অক্ষরেখা অব্দি নেমে গেলেন l তারপরে পশ্চিম দিকে এগোলেন l অবশেষে 1 আগস্ট নামলেন এক নতুন মহাদেশের তীরে l সেই তীরের নাম দিলেন হোলি ট্রিনিটি l তিন সপ্তাহ ধরে উপকূলে পরিক্রমা করলেন l 22 আগস্ট হিস্পানিওলা উদ্দেশ্যে রওনা হলেন l যাত্রাপথে তিনি দেখলেন পশ্চিমে অংশ আরো সুন্দর ও সবুজ l তিনি প্রথম ভাবলেন এটা কোন দ্বীপ নয়,বিশাল মহাদেশ l 24 আগস্ট হিসপানিওয়ালার সংটো ডমিঙ্গো বন্দরে পৌছলেন l এই বন্দরটি  তৈরি করেছিলেন কলম্বাসের ভাই বার্থোলোমিউ যাকে, কলম্বাস দ্বিতীয় অভিযানে রেখে গিয়েছিলেন l বন্দরটি সাজানো-গোছানো হলে কি হবে- ভেতরে চলছে তখন বিক্ষোভ ও বিদ্রোহ l আর চলছে বিক্ষোভ দমনের নামে বার্থোলোমিউর অত্যাচার l এতে শ্বেতাঙ্গ ও ইন্ডিয়ান দুপক্ষই আরো ক্ষেপে গেল l বাধ্য হয়ে কলম্বাস  1496 সালের অক্টোবরে দু জাহাজ ভর্তি বিক্ষুব্ধ শ্বেতাঙ্গদের স্পেনে ফেরত পাঠালেন l তাতেও শেষ রক্ষা হল না l কলম্বাস ও তার দুই ভাই কে বন্দি করা হলো l শৃঙ্খলিত বন্দি অবস্থায় তাদের ফেরত পাঠানো হলো স্পেনে 1500 সালের অক্টোবর মাসে l

চতুর্থ অভিযান:-

তৃতীয় অভিযান শেষে নিদারুণ অপমানে দেশে ফিরলেও প্রায় দেড় মাস কারাবাসে থাকেন কলম্বাস l কারামুক্তি ঘটেছিল 1500 সালের 12 ই ডিসেম্বর l স্পেনের রানী এবারও ভবিষ্যতে নতুন দেশ থেকে প্রচুর সোনা লাভের স্বপ্নে কলম্বাস কে ক্ষমা করে দিলেন l

কলম্বাস বসে থাকলেন না l লিখলেন দুইখানি বই l প্রথমটির নাম ‘বিশেষাধিকার’ আর দ্বিতীয় টির নাম ‘ভবিষ্যৎবাণী’ l কলম্বাসের যেসব প্রাপ্য রোজগার,খেতাব, পুরস্কার পাওয়ার কথা সেগুলি থেকে স্পেনের রানী একইভাবে বঞ্চিত করেছেন এই ছিল প্রথম বইয়ের বিষয় l এ  বই তিনি স্পেনের প্রভাবশালী প্রতিনিধি ও বণিকদের হাতে তুলে দিলেন l সেই সঙ্গে রাজদরবারে আবার অভিযানের আবেদন জানান l এই দ্বিতীয় বইটি অসম্পূর্ণ l এখানে কলম্বাসের ব্যক্তিত্বের সন্ধান পাওয়া যায় l

1502 সালের 26 ফেব্রুয়ারি রাজের কাছ থেকে এলো চতুর্থ অভিযানের অনুমতি l অনুমতিপত্রে ছিল দুটি শর্ত l প্রথমত: হিস্পানিওয়ালাতে যেতে পারবেন না,  এবং দ্বিতীয়ত: যেখানে যাবেন সেখানে কি কি পেলেন তার পুঙ্খানুপুঙ্খ তথ্য থাকবে l এজন্য একজন হিসাবরক্ষক সঙ্গে যাবেন l কালবিলম্ব না করে দু মাসের মধ্যে প্রস্তুতি সারলেন কলম্বাস l চারটে জাহাজ ও 143 জন নাবিক নিয়ে জলে ভাসলেন 1502 সালের 9 মে, সঙ্গে নিলেন পুত্র ফার্নান্দো কে l

কলম্বাসের চতুর্থ অভিযান ছিল প্রাকৃতিক দুর্যোগে বিপর্যস্ত l তাকে হিসপানিওয়ালা যেতে বারণ করা হলেও প্রচণ্ড ঝড়ে সান্টোডোমিনগো বন্দরে পৌছলেন l অনুমতি চাইলেন আশ্রয়র l কিন্তু অনুমতি পেলেন না l 30 জুন রাতে প্রবল ঝড় হলো l কলম্বাসের জাহাজগুলি ভেসে গেল l বহু নাবিক মারা গেল l কলম্বাস নিজের জাহাজটিকে কোনক্রমে বাঁচিয়ে জ্যামাইকা উপকূলের দিকে রওনা হলেন l তারপর হন্ডুরাস ও নিকারাগুয়ার উপকূল বেয়ে নেমে এলেন ভেড়াগুয়া নামক এক স্থানে l কিছুদিন থেকে আবার ফিরলেন জামাইকা l এখানে এসে তিনি খুব অসুস্থ হয়ে পড়েন l হাটা চলার ক্ষমতা হারিয়ে ফেললেন l অবশেষে 1504 সালের জুন মাসে অসুস্থ কলম্বাস ও তার সঙ্গীদের উদ্ধার করে নিয়ে যায় হিস্পানিওলা এক জাহাজ l আশ্রয় দিলে তার জন্য নিষিদ্ধ অঞ্চলের গভর্নর l মাঝখানে বিশ্রামের পর কলম্বাস ফার্নান্দো ও 23 জন সঙ্গি স্পেন অভিমুখে রওনা হলেন l সম্ভবত 1504 সালের 7 নভেম্বর সেনলুকার ডি বারামিডা তে  ফিরে আসেন কলম্বাস l এরঅল্প কিছুদিনের মধ্যে কলম্বাসের প্রধান পৃষ্ঠপোষক রানী ইসাবেলা মারা যান l কলম্বাসের চতুর্থ অভিযানের কাহিনী তাই খুব একটা জনসমক্ষে এলোনা l

কলম্বাস প্রচুর সম্পদের অধিকারী ছিলেন l সেই যুগে সমগ্র ইউরোপ এর একজন প্রধান ধনী ব্যক্তি ছিলেন l অসুস্থ শরীরে 1506  সালের  19 May তিনি এক ইচ্ছাপত্র সমস্ত সম্পত্তি পুত্র ও ভাই এদের মধ্যে ভাগ করে দেন l এরপর দিন 20 May কলম্বাসের মৃত্যু হয় l

মূল্যায়ন:-

কলম্বাসের সমুদ্রযাত্রা নানা ঘাত-প্রতিঘাতের বেশ আকর্ষণীয় ও বর্ণময় হলেও বিতর্ককে পিছু ছাড়েনি l কলম্বাসকে এক নিষ্ঠুর ও নৃশংসতম প্রশাসক রূপে দেখেছেন একদল ঐতিহাসিক l স্পেনের ঐতিহাসিক বর্তলোমে দা লাশ কাঁসাস এর ‘History of The Indiz’ গ্রন্থের পাতায় পাতায় এই বর্ণনা রয়েছে I কলম্বাসের অভিযান কাহিনী তে  জানা যায়  তিনি স্থানীয় অধিবাসীদের মানুষ হিসেবে কোনদিন গ্রহণ করেননি l ছুরি ও তলোয়ারের ধার পরীক্ষা করার জন্য আদিবাসীদের টুকরো টুকরো করে কাটা, নিস্পাপ শিশুদের শিরশ্ছেদ  করতে তিনি পিছপা হননি l কলম্বাস যাদেরকে রেড ইন্ডিয়ান নাম দিয়েছিলেন তাদের একটা বড় অংশকেই তিনি নিশ্চিহ্ন করে দেন l

কলম্বাসের আগেও অনেকে আমেরিকায় গিয়েছিলেন তার প্রমাণ রয়েছে l  সুতরাং কলম্বাস নতুন কোন বিশ্ব আবিষ্কার করেননি এটাও সত্যি I কলম্বাসের আগে থেকেই ওখানে সভ্যতা ছিল l বহু মুসলিম নাবিকও আমেরিকায় গিয়েছিলেন, তবে এদের কারোর আচরণে কলম্বাসের মত এত বর্বরতা ছিল না l তবে ইতিহাস কখনো কখনো বেশ নির্মম হয় l 500 বছর পরে হলেও ইতিহাসর মহাবীর হিসেবে জায়গা করে নেওয়া কলম্বাসকে অনেকটা কাটাছেঁড়া হচ্ছে, জনবিরোধী স্বৈরাচারী ও বর্বর ,শাসক হিসেবে উন্মোচিত হচ্ছে তার পরিচয় l

Leave a Reply

Your email address will not be published.