Sampling in Statistics and data collection through Questionnaire Schedule

Table of Contents

Introduction

We often cannot collect all the information about any object’s item, fact, or subject. In such a case the data seeker collects partial information instead of collecting all the information and presents the whole information with the help of statistics. Thus the sampling method is to perform quantitative analysis by collecting partial data. We usually use a Questionnaire and Schedule to collect information in various sampling methods. In this article, we will discuss Sampling in Statistics and data collection through a Questionnaire Schedule. In this regard, it is necessary to know the term “population” reflects the total data and “sample” represents the part of data.

Common methods:

There are two common methods in sampling: –

a.  Census method:

This method involves every unit of the same surveys as a whole.  This method is prevalent in the census.

b.  Sampling method:

When information is collected from a portion of that information as a representative of the whole information, it is called sample information.  This method is the most common method of data collection.

Importance of sampling:

a.  Samples are always representative of the whole population.

b.  Samples always have to be homogeneous.

c.  The sample must be collected in sufficient quantity so that it can overcome the criteria of sample error. That is, the overall discrepancy with the samples is minimal.

Needs of sampling:

a.  Sampling method reduces the error in the collected sample when it is Properly sampled, which means that the reliability of the result is much higher.

b.  The collection process is cumbersome due to a large ‘population’. So it is necessary to collect samples to get the similarity of ​​the whole.

c.  Collecting samples in this way saves time.

d.  Sampling is essential for quantitative analysis in research, economics, and business.

e.  Collecting the whole “population” is very costly so sampling saves money.

Objective of sampling:

a.  Samples are made to verify the re-acceptability of a previous value trial.

b.  One of the purposes of sampling is to get acquainted with the subject by doing less work in less time.

c.  The main purpose of sampling is to get the right concept of the whole by participating in a small part.

Principles of sampling:

         The sampling theory is based on two principles; they are –

a.  Law of large statistical regularity: It is derived from the theory of probability where characteristics of the sample are the same as the characteristics of the population if the sample is taken properly by the random method.

b.   Law of inertia of large numbers: In this law, if the amount of sample is larger the characteristics of the sample will be nearer to the characteristics of the population.

Sample method:

                When the size of the population is large and it is not possible to survey the entire population, in this case, a special sample is selected based on a part of the aggregate, that is, the sample will be obtained through survey and analysis.

     For example –    Out of 600 workers in the factory, 100 workers are selected for the survey to assess their monthly income. This makes it possible to estimate the relationship between the monthly income of the factory worker.

Advantages of sampling method:

a.  The cost of this survey tends to be relatively low.

b.  Since a small portion of the whole is used for survey work, it is less labor-intensive.

c.   It saves time compared to the census method.

Disadvantages of sampling method:

a.  If the number of samples is less, errors are detected during the analysis, which reduces the reliability of the statistical decision.

b.  If there is an error in the sample selection, it may not be possible to come to the right conclusion.

c.  There is a possibility of error in applying this method if there is more diversity than unity in the whole. 

Sample size:

         Samples are a part of the whole. How large the sample size will depend entirely on how large the overall volume is. If the sample size is very small than the population, it is not possible to make the right decision based on the results obtained.

Types of sampling:

A.   Random sampling

B.  Non-random sampling 

A. Random sampling: –

The method of sampling in which each of the units with similar characteristics is likely to be sampled is called random sampling.

  Subdivision: There are several subdivisions in random sampling. Those are:

a.  Simple Random Sampling: –

This is a science-based and reliable sample. Units are sampled, even by lottery, as per one’s whim. Because every single one is worth choosing.

b.   Stratified Random Sampling: – 

This method collects a certain number of samples from each level without collecting samples from anywhere. As a result, the characteristics of each level are revealed and the aspect of diversity in unity is revealed. This method is called the stratified sampling method.

c.  Systematic Random Sampling: –

Dividing the total number by the population number that will be created, the quotient obtained will be the determinant of the sample unit.

d.  Cluster sampling: –

In this method, the population is divided into several clusters or subdivisions. The single shots of this cluster depend on the heterogeneity.

e.  Multi-stage Sampling: –

The sample unit is selected step by step by dividing the population into several stages.

B. Non-random sampling: –

If the sample selection is not taken at random, that is, where not everyone is likely to be included in the sample, depending on the researcher’s judgment and the convenience of data collection, it is called non-random sampling. 

  Subdivision: The subdivisions of non-random sampling are as follows. 

a.  Purposive Sampling: – 

When measuring any particular feature or features of the aggregate, the sample includes only those who are considered by the researcher to be in it. This is called purposive Sampling.

b.  Quota sampling: – 

The method by which the percentage of sampling is pre-determined in terms of sample collection or aggregate is called quota sampling.

c.  Sudden sampling: – 

Sudden sampling is the sampling that is done in a hurry when a sudden collection is required.

d.  Convenience sampling: – 

Sampling from the population depends entirely on the researcher’s comfort. In this, the ease of the researcher in collecting samples is more important than the application of judgment at random.

Sampling and data collection: –

Statistics are collected by selecting samples through questionnaires. Socio-economic diversity is part of geography practice and research. There is a need to be aware of the various issues that affect the socio-economic development of the people in a region for research and information gathering. For this, the sample selection method is followed and relevant questions are prepared for various information.

A. Objectives: –

a.  Whether there is access to affordable irrigation.

b.  Whether pesticides are used.

c.  What is the selling price of the crop?

d.  What is the Crop production per hectare?

e.  If the crop is surplus or not, how much are surplus and sales.

f.  Whether the land is flooded or drought-prone and how much damage is caused as a result.

g.  Whether he raises cattle in addition to grain production.

h.  What is the income from cattle?

i.  Whether you cultivate fish in paddy land or not, what is the income from it?

j.  How many members of his family donate labor on agricultural land.

k.  What is the right amount of income and expenditure from agriculture?

l.  It is necessary to collect information on whether there is any benefit from the government for cultivation and what kind of assistance is available.

m.   What is the amount of ownership on agricultural land?

n.   Whether a tractor is used for cultivation on agricultural land.

o.   Labour cost per hectare and cost of tractor.

p.   How many crops are produced in the land in a year.

q.   What amount of fertilizer is used per hectare of land.

r.   How many women in the family are involved in agriculture?

s.   How many women in the family are involved in agriculture?

t.   How much of the total income of the family is derived from agriculture.

Data collection through Questionnaire Schedule:

A. Questionnaire – 

Data can be collected indirectly from the questionnaire, by letter or e-mail, without having to go to the survey during the survey period. In this case, the respondent does not need any direct communication with the surveyor.

 A.1. Advantages of the questionnaire –

a. Questionnaires can be filled by multiple respondents at once.

b. The cost of the survey is very low.

c. Answers are also collected from remote areas through telephone, e-mail, and letter.

d. Quick surveys can be organized.

e. Manpower is scarce.

A.2. The disadvantage of the questionnaire –

a.    The respondent may not answer or maybe late after getting the questionnaire.

b. Since the respondent answers himself, the reliability of the answer may be less.

c. It is not possible to understand whether the respondent is dissatisfied when some questions are embarrassing.

 d. Difficulty collecting answers if handwritten answers are wrapped or in a vague or different language.

B. Schedule –

In this case, the surveyor himself and with the help of trained surveyors will ask questions from the respondent’s work and take the answers, such as collecting the answers through an interview and recording them directly.

 B.1. Advantage of schedule –

a. Reliability is high because the surveyor collects the answers himself.

 b. If the respondent cannot say so, he can give the correct answer if you help him.

 c. If direct answers are not available, indirect answers can be collected.

d. It is possible to modify or change the questionnaire by understanding the socio-economic status of the respondent.

e. You may refrain from asking questions that may embarrass or upset you.

B.2. The disadvantage of schedule –

a. Respondents may not make good behavior of it and may hinder the collection of answers.

b. Many respondents may not be home during the survey period, which may require repeated visits.

c. Difficulty if the number of survey samples is too high.

d. Relatively expensive. 

 e. Data collection takes a lot of time.

Conclusion:

Sampling in Statistics and data collection through Questionnaire Schedules helps us select the shortest possible information from a large database. This method saves us time and labor and helps us to come to a concise and logical conclusion of big data easily. Therefore, Sampling in Statistics and data collection through Questionnaire Schedules is a very important tool for statisticians. 

Join the Community

Join the free community of QGEO where we will be guiding you through the journey of learning geography. We have successfully organized more the 15 online courses. There are more than 2500 students, who actively participate with us. We are providing geography students, scholars, and professionals a better experience in the field of geography.

Follow us on Social Media

Follow us on social media like Facebook Page and YouTube channel for the latest posts and more content.

Contact us for more information.

 Notes in Bengali

 1. ভূমিকা:

কোন বস্তু, ঘটনা, পদ বা বিষয় সংক্রান্ত সকল তথ্যই অনেক সময় আমরা সংগ্রহ করতে পারিনা। এমন অবস্থায় তথ্য অনুসন্ধানকারী সমগ্র তথ্য সংগ্রহের পরিবর্তে আংশিক তথ্য সংগ্রহ করে সেগুলিকে রাশিবিজ্ঞান এর সাহায্যে সমগ্র তথ্যটি উপস্থাপন করা হয়। এইভাবে আংশিক তথ্য সংগ্রহ করে রাশি মাত্রিক বিশ্লেষণ সম্পাদন করা হল নমুনায়ন পদ্ধতি। নমুনা সংগ্রহের জন্য আমরা সাধারণত কোশ্চোনেয়ার ও সিডিউল ব্যবহার করে থাকি। নিম্নে নমুনায়ন এবং কোশ্চোনেয়ার ও সিডিউল সম্পর্কে আলোচনা করা হলI এই বিষয়ে এটা জানা দরকার যে “জনসংখ্যা” শব্দটি মোট ডেটা বা উপাত্তকে প্রতিফলিত করে এবং “নমুনা” উপাত্ত বা ডেটার অংশকে উপস্থাপন করে।

2. প্রধান পদ্ধতি :

এই নমুনায়ন পদ্ধতির দুটি পদ্ধতি প্রচলিত:-

a.   সেন্সাস পদ্ধতি:-এই পদ্ধতিতে সমগ্রকের প্রতিটি একক একই সমীক্ষার অন্তর্ভুক্ত করা হয়। আদমশুমারিতে এই পদ্ধতির প্রচলন আছে।

b.   নমুনা পদ্ধতি: –সমগ্র তথ্যের প্রতীকস্বরূপ যখন ওই তথ্যের কিছু অংশের তথ্য সংগ্রহ করা হয় তখন তাকে নমুনা তথ্য বলা হয়। এই পদ্ধতিটি তথ্য সংগ্রহের সর্বাপেক্ষা বহুল প্রচলিত পদ্ধতি।

3.  নমুনায়নের বৈশিষ্ট্য: –

a.   নমুনা সর্বদা সমগ্রকের প্রতীকস্বরূপ হয়ে থাকে।

b.   নমুনাগুলো সর্বদাই সমগ্রকের সমজাতীয় হতে হয়।

c.   নমুনা অবশ্যই যথেষ্ট পরিমাণে সংগ্রহ করতে হবে যাতে তা নমুনা-ভ্রম এর মাপকাঠিতে আসতে না পারে । অর্থাৎ নমুনাগুলির সঙ্গে সমগ্রকের অমিল ন্যূনতম হয়।

4.  নমুনায়নের প্রয়োজনীয়তা:-

a.   সঠিকভাবে নমুনায়ন পদ্ধতিতে নমুনা সংগ্রহ করলে সংগ্রিহীত নমুনায় ভ্রান্তি অনেকটা কম হয় অর্থাৎ নির্ভরযোগ্যতা অনেকটাই বেশি।

b.   সমগ্রকের পরিসংখ্যান অধিকমাত্রায় হওয়ার কারণে ওটি সংগ্রহের প্রক্রিয়া কষ্টদায়ক হয়। তাই সমগ্রকের সমরূপ ধারণা পেতে নমুনা সংগ্রহের প্রয়োজনীয়তা হয়।

c.   এই পদ্ধতিতে নমুনা সংগ্রহ করলে সময় বাঁচে।

d.   গবেষণার ক্ষেত্রে, অর্থনীতির ক্ষেত্রে, ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে রাশি মাত্রিক বিশ্লেষণ এর জন্য নমুনায়ন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও অপরিহার্য।

e.   সমগ্রক সংগ্রহ করা অনেকটাই খরচসাপেক্ষ তাই নমুনায়ন অর্থের সাশ্রয় করে।

 5.  নমুনায়নের উদ্দেশ্য:-

a.   পূর্বে ঘটে যাওয়া কোনো মূল বিষয়ের পুনরায় গ্রহণ যোগ্যতা যাচাই করার জন্য নমুনায়ন করা হয়ে থাকে।

b.   কম সময়ে কম শ্রম করে বিষয় সম্বন্ধে পরিচিতি লাভ করা নমুনায়নের অন্যতম উদ্দেশ্য।

c.   সমগ্রকের সামান্য অংশগ্রহণ করে সঠিক ধারণা লাভ করাই নমুনায়নের প্রধান উদ্দেশ্য।

6. নমুনায়নের নীতিসমূহ:

নমুনায়ন তত্ত্বটি দুটি নীতির উপর প্রতিষ্ঠিত সেগুলি হল-

a.   রাশি মাত্রিক ধারাবাহিকতা নীতি: এটি সম্ভাব্যতার তত্ত্ব থেকে উদ্ভূত যেখানে নমুনার বৈশিষ্ট্যগুলি সমগ্রকের বৈশিষ্ট্যগুলির সাথে একই, যদি নমুনাটি এলোমেলো পদ্ধতিতে সঠিকভাবে নেওয়া হয়।

b.   বৃহৎ পরিসংখ্যান জাড্যতার নীতি: এই নীতি অনুসারে, নমুনার পরিমাণ বেশি হলে নমুনার বৈশিষ্ট্য সমগ্রকের বৈশিষ্ট্যের কাছাকাছি হবে।

7.  নমুনা পদ্ধতি

যখন সমগ্রক এর আয়তন বেশি হয় এবং সমগ্র জনসংখ্যার উপর সমীক্ষা করা সম্ভব হয় না, এই ক্ষেত্রে সমগ্রকের একটি অংশের উপর ভিত্তি করে বিশেষ নমুনা হিসাবে নির্বাচন করা হয় অর্থাৎ, নমুনা  হল সমীক্ষা ও  বিশ্লেষণের মাধ্যমে সমগ্রক সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণাই উপনীত  হওয়ার পদ্ধতি।

যেমন : কারখানায় 600 জন শ্রমিকের মধ্যে মাসিক আয় এর সমীক্ষার জন্য 100 জন শ্রমিকে সমীক্ষার কাজে নির্বাচন করা হয়। এর ফলে কারখানায় শ্রমিকের মাসিক আয় এর সম্পর্কের ধারণা করা সম্ভব ।

8. নমুনা পদ্ধতির সুবিধা :

a.   এই সমীক্ষার ব্যায় তুলনমূলকভাবে কম হয়ে থাকে ।

b.   সমগ্রকের এক ক্ষুদ্রাংশ সমীক্ষার কাজে ব্যবহৃত হয় বলে এটি কম শ্রমসাপেক্ষ ।

c.   সেন্সাস পদ্ধতির তুলনায় এটি সময় সাশ্রয়কর ।

 9. নমুনা পদ্ধতির অসুবিধা:

a.   নমুনার সংখ্যা কম হলে বিশ্লেষণ কালে ত্রুটি ধরা পড়লে পরিসংখ্যানের সিদ্ধান্তের নির্ভর যোগ্যতা কমে যায়।

b.   নমুনা নির্বাচনে ত্রুটি হলে সঠিক সিন্ধান্তে আসা সম্ভব না ও হতে পারে।

c.   সমগ্রকের মধ্যে ঐকের পরিবর্তে বৈচিত্র্য বেশি থাকলে এই পদ্ধতি প্রয়োগের ত্রুটি সম্ভাবনা থাকে।

10. নমুনার আয়তন:

সমগ্রের একটি অংশ হলো নমুনা । নমুনার আয়তন কতটা বৃহৎ হবে তা সম্পূর্ণ ভাবে নির্ভর করে সমগ্রকের আয়তন কতটা বিশাল তার উপর।যদি সমগ্রকের তুলনায় নমুনার আয়তন অনেক ছোট হয় তাহলে প্রাপ্ত ফলাফল থেকে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা সম্ভব নাও হতে পারে ।

11. নমুনায়নের প্রকারভেদ :

   A. রেন্ডাম স্যাম্পলিং বা  এলোমেলো নমুনায়ন

                     B. নন রেনডম স্যাম্পলিং বা  অ-এলোমেলো নমুনায়ন

A. এলোমেলো নমুনায়ন : যে নমুনায়ানের পদ্ধতিতে সম বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন এককগুলির প্রতিটি  নমুনাবদ্ধ হবার সমসম্ভবনা থাকে  সেই  পদ্ধতিতেকে  এলোমেলো নমুনায়ন বলে।

 উপবিভাগ : এলোমেলো নমুনায়ন এর কত গুলি উপবিভাগ রয়েছে সেগুলো হলো —–

 11.A.a.  সরল এলোমেলো নমুনায়ন – এটি একটি বিজ্ঞানভিত্তিক এবং নির্ভরযোগ্য নমুনায়ান। নিজস্ব খেয়ালখুশি মত , এমনকি লটারির মাধ্যমে ও একক গুলিকে নমুনায়ন করা হয়। কারণ প্রতিটি এককই সমসম্ভবনায় চয়ন যোগ্য হয়।

  11.A.b. স্তরায়িত এলোমেলো নমুনায়ন – এই পদ্ধতিতে যত্রতত্র থেকে নমুনা সংগ্রহ না করে প্রতিটি স্তর থেকে কিছু সংখ্যক নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এর ফলে প্রতিটি স্তরের বৈশিষ্ট্যই প্রতিভাত হয় এবং ঐক্যের মধ্যে বৈচিত্রের দিকটি উদঘাটিত হয়। এই পদ্ধতিকেই স্তরায়িত নমুনাচয়ন পদ্ধতি বলে।

11.A.c. নিয়মানুগ এলোমেলো নমুনায়ন – মোট যে সংখ্যক নমুনা সৃষ্টি হবে তা দিয়ে সমগ্রক সংখ্যাকে ভাগ করলে প্রাপ্ত ভাগফলটি নমুনা এককটির নির্ণায়ক হবে।

   11.A.d. গুচ্ছ নমুনায়ন – এই পদ্ধতিতে সমগ্রককে কতগুলি গুচ্ছ বা উপবিভাগে বিভক্ত করা হয়। এই গুচ্ছের একক গুলি অসমসত্ত্বা নির্ভর হয়।

 11.A.e. বহুধাপ নমুনায়ন – সমগ্রককে কয়েকটি পর্যায়ে বিভক্ত করে ধাপে ধাপে নমুনা একক নির্বাচন করা হয়। 

11.B.  অ-এলোমেলো নমুনায়ন: যদি নমুনা চয়ন এলোমেলোভাবে অর্থাৎ যেখানে সকলেরই নমুনা অন্তর্ভুক্ত হবার সম্ভাবনা থাকে এমন না হয় অনুসন্ধানকারী বিচারবোধ ও তথ্য সংগ্রহের সুবিধার উপর নির্ভর করে নমুনা হিসেবে গৃহীত হয় সেক্ষেত্রে তাকে নন রেনডম স্যাম্পলিং বলে।

         উপবিভাগ:  অ-এলোমেলো নমুনায়ন এর উপবিভাগগুলি হলো নিম্নরূপ —-

11.B.a.  উদ্দেশ্যমূলক নমুনায়ন : সমগ্রকের কোনো বিশেষ বৈশিষ্ট্য বা বৈশিষ্ট্যসমূহ পরিমাপ যখন উদ্দেশ্য হয় তখন যাদের বা যেগুলির মধ্যে তা আছে বলে অনুসন্ধানকারী বিবেচনা করেন, কেবল তাদেরই নমুনার অন্তর্ভুক্ত করা হয়। একে পারপাসিভ বা উদ্দেশ্যমূলক নমুনায়ন বলে।

11.B.b.   কোটা নমুনায়ন – যে পদ্ধতিতে নমুনা সংগ্রহ বা সমগ্রকের পরিপ্রেক্ষিতে নমুনা গ্রহণের শতকরা হার পূর্ব নির্দিষ্ট থাকে, তাকে কোটা স্যাম্পলিং বলে

11.B.c.   আকস্মিক নমুনায়ন – হঠাৎ নমুনা সংগ্রহের প্রয়োজন হয়ে পড়লে তড়িঘড়ি করে যে নমুনাচয়ন করা হয় তাকে সাডেন স্যাম্পলিং বা আকস্মিক নমুনায়ন বলে।

11.B.d.  স্বাচ্ছন্দ মূলক নমুনায়ন –সমগ্রক থেকে নমুনা চয়ন সম্পূর্ণভাবে নির্ভর করে অনুসন্ধানকারী নিজস্ব স্বাচ্ছন্দ্যের উপর। এতে এলোমেলোভাবে বা বিচারবোধ প্রয়োগের চেয়েও নমুনা সংগ্রহে অনুসন্ধানকারী স্বাচ্ছন্দ গুরুত্ব পায়।

12.   নমুনাচয়ন ও পরিসংখ্যান সংগ্রহ :

নমুনা চয়ন করে প্রশ্নপত্র বা কোশ্চেনেয়ার মাধ্যমে পরিসংখ্যা সংগৃহীত হয়।

আর্থসামাজিক বহুবিধ বিষয় ভূগোল চর্চা ও গবেষণার অঙ্গ। কোন অঞ্চলে মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়নে প্রভাবকারী বিষয়গুলি অনুসন্ধান ও তথ্য সংগ্রহের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে অবহিত হওয়া প্রয়োজন। এজন্য নমুনা চয়ন পদ্ধতি অনুসরণ করা হয় এবং বিভিন্ন তথ্য জ্ঞাতার্থে সংশ্লিষ্ট প্রশ্ন গুলি তৈরি করা হয়।

12. A. নমুনাচয়ন ও পরিসংখ্যান সংগ্রহ উদ্দেশ্য:

a.   সুলভ জলসেচের সুবিধা আছে কিনা

b.   কীটনাশক ব্যবহার করা হয় কিনা

c.   ফসলের বিক্রয় মূল্য কত

d.   হেক্টর পিছু ফসলের উৎপাদন কত

e.   ফসল উদ্বৃত্ত হয় কিনা না হলে কতটা উদ্বৃত্ত ও বিক্রয় হয়।

f. জমি বন্যাকবলিত বা খরা কবলিত হয় কিনা এবং হলেও তার ফলে কি পরিমান ক্ষয়ক্ষতি হয়

g.   শস্য উৎপাদনের পাশাপাশি গবাদি পশু পালন করেন কিনা

h.   গবাদি পশু থেকে আয় কত

i. ধান জমিতে মাছের চাষ করেন কি না করলেও তা থেকে আয় কত

j. নিজের পরিবারের কতজন কৃষি জমিতে শ্রম দান করেন

k. কৃষিকার্য থেকে সঠিক আয় ও ব্যয়ের পরিমাণ কি

l. চাষের জন্য সরকার তরফ থেকে কোনো রকম সুবিধা মেলে কিনা, কি ধরনের সহায়তা পাওয়া যায় তা সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ প্রয়োজন।

m. কৃষি জমিতে কি পরিমান মালিকানা আছে।

n.কৃষি জমিতে চাষের জন্য ট্রাকটারের সাহায্য নেওয়া হয় কিনা।

o.হেক্টর পিছু শ্রম মজুরি ও ট্রাক্টর এর খরচ কত।

p. বছরে জমিতে কতবার ফসল উৎপাদন হয়।

q.হেক্টর পিছু জমিতে কি পরিমান সার ব্যবহার করা হয়

r.পরিবারের নারীরা কৃষিকাজের সাথে কতটা যুক্ত।

s.কৃষিকাজে কি পরিমাণ আধুনিকতার সুযোগ নেওয়া হয়।

t.পরিবারের মোট আয়ের কত অংশ কৃষি থেকে প্রাপ্ত।

 13. তথ্য সংগ্রহ কোশ্চোনেয়ার ও সিডিউল এর মাধ্যমে :

13.A.কোশ্চোনেয়ার: কোশ্চোনেয়ার বা প্রশ্নছক থেকে সমীক্ষাকালে নিজে না গিয়েও পরোক্ষভাবে তথ্য সংগ্রহ, চিঠি বা ই-মেলের মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করা যায়, প্রশ্নছক পাঠিয়ে দিলে উত্তরদাতাগণ নিজেই প্রশ্নছক পূরণ করে দেন। এক্ষেত্রে সমীক্ষকারির সঙ্গে উত্তরদাতার কোনো রকম প্রত্যক্ষ যোগাযোগের প্রয়োজন নেই।

13.A.1.  কোশ্চেনেয়ারের সুবিধা:

a. একসঙ্গে বহু উত্তরদাতার কাছ থেকে প্রশ্নছক পূরণ করা যায়।

b. সমীক্ষার ব্যায় খুব কম।

 c. দুর্গম অঞ্চল থেকেও টেলিফোন, ই – মেল, চিঠির মাধ্যমে উত্তর সংগ্রহ করা হয়।

d. দ্রুত সমীক্ষা সংগঠন করা যায়।

e. জনবলের প্রয়োজন স্বল্প।

         13.A.2.  কোশ্চেনেয়ারের অসুবিধা :-

a. প্রশ্নছক পেয়ে উত্তরদাতা উত্তর নাও দিতে পারেন বা দেরি করতে পারেন।

b. উত্তরদাতা যেহেতু উত্তর নিজে দেন, উত্তরের নির্ভরযোগ্যতা কম হতে পারে।

c. কিছু কিছু প্রশ্ন বিব্রত হলে  উত্তরদাতা অসন্তুষ্ট হলেন কিনা বোঝা সম্ভব নয়।

d. হতে লেখা উত্তর জড়ানো বা অস্পষ্ট বা ভিন্ন ভাষায় হলে উত্তর সংগ্রহে অসুবিধা

 13.B.সিডিউল – এর ক্ষেত্রে উক্ত প্রশ্নছক নিয়ে সমীক্ষকারী নিজে ও প্রশিক্ষিত সমীক্ষকারীদের সাহায্যে উত্তরদাতার কাছ থেকে প্রশ্ন জিজ্ঞেস করে উত্তর জেনে নেবেন। যেমন সাক্ষাতকারের মাধ্যমে উত্তর সংগ্রহ করে সরাসরি লিপিবদ্ধ করা ।

13.B.1. সিডিউলের সুবিধা:

a. সমীক্ষাকারী নিজে উত্তর সংগ্রহ করেন বলে নির্ভরযোগ্যতা বেশি।

b. উত্তরদাতা না বলতে পারলে তাকে সাহায্য করলে তিনি সঠিক উত্তর দিতে পারেন।

c. সরাসরি উত্তর না পাওয়া গেলে পরোক্ষভাবে উত্তর সংগ্রহ করা যায়।

d. উত্তরদাতার আর্থসামাজিক অবস্থা বুঝে প্রশ্নছককে পরিমার্জন বা পরিবর্তন করা সম্ভব।

 e. বিব্রত বা বিরক্ত হতে পারেন এরূপ প্রশ্ন করা থেকে বিরত থাকতে পারেন।

 13.B.2. সিডিউলের অসুবিধা হলো:

a. উত্তরদাতা ভালো ব্যবহার নাও করতে পারেন, উত্তর সংগ্রহে বাধা দিতে পারেন।

b. নির্দিষ্ট সময়ে সমীক্ষাকালে অনেক উত্তরদাতা গৃহে নাও থাকতে পারেন ফলে বারংবার যাবার প্রয়োজন হতে পারে।

c. সমীক্ষার নমুনা সংখ্যা খুব বেশি হলে অসুবিধা

d. অপেক্ষাকৃত ব্যয়বহুল।

 e. তথ্য সংগ্রহে প্রচুর সময় লাগে।

 14.  উপসংহার:

নমুনায়ন এবং কোশ্চোনেয়ার ও সিডিউল  আমাদেরকে বৃহৎ তথ্য ভান্ডার থেকে নির্ধারিত সংক্ষিপ্ত তথ্য চয়নে সাহায্য করেI এই পদ্ধতি আমাদেরকে সময় ও শ্রম এর সাশ্রয়  করেI  সহজে বৃহৎ তথ্যের সংক্ষিপ্ত ও যুক্তিযুক্ত একটি সিদ্ধান্তে উপনীত হতে সহায়তা করেI তাই, নমুনায়ন এবং কোশ্চোনেয়ার ও সিডিউল পরিসংখ্যানবিদ দের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি হাতিয়ারI 

Leave a Reply

Your email address will not be published.