Research and its different types with significance

Table of Contents

What is Research? 

Research is the systematic, scientific, well-coordinated process of searching for answers to specific questions. Below we will discuss research and its different types with the significance of each.

In English ‘Research’ means rediscovering or reinvestigating. In Bengali, “go + esona” literally means finding a cow and generally a detailed search on a subject. In the medieval France period, the Roman Latin Inaudible dialect ‘Recherche’ means “to go about seeing”. The term ‘research’ was first coined around 1577 AD, which means “Re + cercher” or “Searcher” meaning “search”.

Definition of Research

Different scholars defined research from different angles. 

1. According to Aristotle, ‘research is a scientific method that begins at a time when a general idea can be drawn from many experiences,  and that idea includes different other things

2. According to the “Encyclopaedia of Britannica”, research is a process of the scientific method through which all sciences are formed.

3. According to ‘Burns’ in 1997, research is a systematic search process to find the answer to a problem.

4. Research in ‘Grimcell’ is a structured search process that is used in a holistic way to uncover new knowledge. Adopts scientific method of problem-solving

5. According to ‘Carl Bearson’, research is a long process of truth-seeking using only scientific methods to seek knowledge about the world.

6.  According to ‘Kothari’ (2006), the pursuit of confidence through study, observation, comparison, and experimentation opens the way to solve the problem in a systematic way.

From the above definitions, it is clear that research is the process of completing a systematic synchronized process in a specific predefined way in order to find answers to specific questions.

Different types of research

Research can be categorized from different perspectives. Generally, research is divided into the following categories –

Research and its different types

1. Quantitative research

The method by which the statistical quality of real data is tested in mathematical analysis is called quantitative research.

For example, research on land ownership, population, birth, death, etc. in a particular region.

Significance: There is less error and the method is much more scientific and reliable based on the most obvious and precise causal relationship.

2. Qualitative research

This study of innumerable facts is expressed in words, sentences, pictures, and drawings.

    For example, in an open questionnaire, Diary descriptions are included in this type.

Significance- In this method, there is a great chance to reflect the mentality, expectation, and ideology of the researcher. 

Significance- The amount of error is less here and this study is much more scientific and reliable based on the cause and effect relationship.

3. Evaluative research

Special research that is taken to evaluate the effectiveness of a plan is called evaluative research. The assessment that is made continuously during the implementation of the project is called continuous evaluation. The assessment that takes place in the middle of the project implementation is called alternative evaluation and the assessment that takes place at the end of the project implementation is called marginal evaluation.

Significance- This type of research can be used to analyze the current situation of a project.

4. Basic research

Fundamental research is the presentation of new information and new discoveries through conventional knowledge of science

For example, various theories of science such as Archimedes’ theory, Newton’s theory, various theories of social science, etc. are significant.

Significance – With the discovery of new theories in this type of research, the old theories begin to be refined.

5. Applied research

Research that is conducted for the purpose of solving a real problem is called applied research.

Such research is used to solve various problems such as housing problem, traffic congestion problem, juvenile delinquency problem

    Significance: This type of research is much more practical and therefore more useful in real life, which can be easily understood in the field of medicine and medical science.

6. Activity research

Activity research is the study of ways to solve a social problem by analyzing the cause of a problem.

This research is usually conducted through the process of understanding any social problem, formulating a plan, implementing the plan, and monitoring.

Significance- This type of research explores the causes of various social problems and seeks alternative ways to eliminate those problems

7. Historical research

Historical research is the process of finding solutions to problems based on a historical event or Historical context of human activity. 

In this case, historical documents are used as a source of historical research, such as archeological specimens, trustworthy texts, or written records of personal observations.

    Significance: This type of research reveals the problems of a population in the past and how to solve their problems.  

8. Exploratory research

Exploratory research is the process of observing and concluding various types of experiments in the natural sciences, usually in the laboratory.

There are two main methods used in such laboratory studies, namely, comparative testing and confirmation testing.

According to the nature of the laboratory, it is of two types namely- Laboratory test and Field test.             

   Significance- This type of research is usually effective in the case of quantitative information. In some cases, this type of research can be done by converting qualitative information into quantitative information.

9. Content analytical research

Content research is the search for a specific analysis based on the different amounts of its components and the relevant information for analysis.      

Quantities, sources, types, etc. can be considered among the elements of content

Significance- Misconceptions, expressions, words, or other messages about a subject can be easily highlighted through this study.

10. Case study

The study of facts is the qualitative observation of a particular group on a particular subject in a particular field at a particular time.

         This group or individual study leads to new thinking and conclusions in various fields. Personal documents, life history, etc. are considered as the source of this type of research.

Significance – Most social issues are used in this study. This space-time-dependent study reflects very different results.

11. Social survey Research

A social survey is a study that is conducted by collecting the views of people from different levels of life on a particular socio-economic problem. In this type of study, the researcher has direct contact with the affected people and the material in the area concerned, so the whole research phase is carried out through the process of documenting their feedback.

Significance- The purpose of this study is to solve the problem determined in the context of a specific place and time. Therefore, this study is very effective.

12. Exploratory research

The method of discovering a new subject or presenting and analyzing information is classified as exploratory research.

        The results of such research are constantly changing with space and time

Significance: This type of research provides relatively accurate information and is helpful to various studies.  Such as AIDS in the sixties of the twentieth century was unknown, but research has led to the discovery of the causes and prevention of AIDS.

13. Explanatory research

This type of research, mainly used in the case of geography, determines the subject and the way to solve the problem.

         This type of research is descriptive and analytical.

Significance: This type of research analyzes the changing effects of certain events with the change of another.

14. Field Research

Field research is the type of research that is carried out to review the various problems of the social sciences in the context of their natural problems. 

The need for a laboratory in such research is not very useful. However, sometimes laboratory tests are required to verify the information and knowledge gained from the field. 

Significance- This type of research is very much needed to solve regional problems. The region can be very small, medium, and large in nature.

15. Laboratory Research:

This type of research is usually observed in different branches of pure science. Hypotheses are verified in the laboratory through various experiments. 

Significance- Most of the information of pure science is tested in the laboratory and later it is used for public welfare.  So, this kind of research is very necessary for new inventions and discoveries.

16. Participatory research

  Participatory research is the study in which the researcher engages with the opinions, suggestions, and processing of the opinions of the people involved in the subject.

           In conducting research on agricultural production, the researcher selects the active participation of the farmer

Significance: This type of research helps to represent relatively accurate information and solve the concerned problems.

17. Participate in various studies

In such research, research work can continue without the direct participation of the people connected with the content.

In this case, the researcher conducts research based on any secondary data.

Significance: While such research may shed light on a larger problem, it does not analyze the spatial or field-based problem.

Conclusion

Thorough knowledge of the nature of different types of research helps the researcher to choose his method of research. 

The nature of research is evolving day by day and new ideas are being added through the incorporation of new knowledge in the field of research. Before starting research on a particular subject, the researcher has to decide on its method. The main themes and context of the research have to be considered. Considering the perspective and suitability of data collection, the researcher as a whole enters deeper into the subject of research. So these are everything about research and its different types.

Join the Community

Join the free community of QGEO where we will be guiding you through the journey of learning geography. We have successfully organized more the 15 online courses. There are more than 2000 students, who actively participate with us. We are providing geography students, scholars, and professionals a better experience in the field of geography.

Note is Bengali

গবেষণা এবং তাৎপর্য সহ এর বিভিন্ন প্রকার

ভূমিকা: 

‘Research’ অর্থাৎ গবেষণা ইংরেজি Research এর অর্থ পুনরায় খোঁজা | বাংলায় গবেষণা শব্দটি এসেছে  “গো+এষনা” থেকে  যার আক্ষরিক অর্থ গরু খোঁজা I সামগ্রিক অর্থে কোন বিষয়ে বিস্তারিত অনুসন্ধান কে গবেষণা বলে |  মধ্যযুগের ফ্রান্সে রোমানদের ল্যাটিন অশ্রাব্য  ভাষা ‘Recherche’,যার অর্থ “To go about seeking” অর্থাৎ কোনো কিছু খোঁজার উদ্দশ্যে যাত্রা করা | 1577 খ্রিস্টাব্দ নাগাদ Research  শব্দটি প্রথম পাওয়া গেছে,  যা “Re+cerchier” or “Sercher” হিসাবে ;  এর অর্থ search I 

সংজ্ঞা: 

বিভিন্ন গবেষকগন বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে গবেষণাকে সংজ্ঞায়িত  করেছেন | সেগুলি নিম্নরূপ –

1. অ্যারিস্টোটলের মতে:  ‘research’  হলো একটি বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি যা তখনই শুরু হয় যখন অনেকগুলি অভিজ্ঞতা থেকে একটি সাধারণ ধারণায় উপনীত হওয়া যায় | এবং সেই  ধারণা অন্যান্য বিষয়গুলিকে অন্তর্ভুক্ত করে | 

 2. Encyclopaedia of Britannica– এর মতে:  গবেষণা হলো বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে সকল বিজ্ঞান গড়ে ওঠে |

 3. 1997 খ্রিস্টাব্দে Burns এর মতে:  গবেষণা হলো কোন সমস্যার উত্তর খোঁজার জন্য একটি প্রণালীবদ্ধ অনুসন্ধান প্রক্রিয়া | 

4.  Grimcell এর মতে: গবেষণা হলো একটি কাঠামোবদ্ধ অনুসন্ধান প্রক্রিয়া যা নতুন জ্ঞান উন্মোচনের জন্য সার্বিক ভাবে ব্যবহার করা হয় | সমস্যা সমাধানের বিজ্ঞানসম্মত পদ্ধতি অবলম্বন করে | 

 5. Carl Bearson এর মতে: বিশ্ব সম্পর্কে জ্ঞান অন্বেষণের জন্য কেবল মাত্র বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অবলম্বন করে সত্যানুসন্ধানের দীর্ঘ প্রক্রিয়া হল গবেষণা | 

 6. Kothari (2006) এর মতে: অধ্যায়ন, পর্যবেক্ষণ, তুলনা, ও  পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে আস্থা অর্জনের সাধনা নির্দিষ্ট লক্ষ্যে প্রণালীবদ্ধ উপায় সমস্যা সমাধানের পথ  উন্মোচন করে |          

উপরিউক্ত সংজ্ঞাগুলি থেকে স্পষ্ট ধারণা করা যায় যে সুনিদৃষ্ট প্রশ্নের উত্তর খোঁজার লক্ষ্যে সুনির্দিষ্ট পদ্ধতিতে সুসংবদ্ধ কর্মপ্রক্রিয়া সম্পন্নের মাধ্যমে একটি সাধারণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়াকে গবেষণা বলে |              

শ্রেণীবিভাগ ( Different types of Research ):

গবেষণাকে বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে শ্রেণীবিভাগ করা যেতে পারে, সাধারণভাবে গবেষণা নিম্নোক্ত শ্রেণীতে বিভক্ত হল –

1. সংখ্যাগত গবেষণা/Numerical research

যে পদ্ধতিতে বাস্তব তথ্য সমূহের পরিসংখ্যানগত মানের গাণিতিক বিশ্লেষণএ গবেষণা পদ্ধতিতে  পরীক্ষিত হয় তাকে সংখ্যাতত্ত্ব গবেষণা বলে |

যেমন- জমির মালিকানা, জনসংখ্যা, জন্ম, মৃত্যু প্রভৃতি বিষয়ে  কোন একটি অঞ্চলের কোন একটি সময়ের গবেষণা |  

তাৎপর্য- এখানে ভুল ভ্রান্তির পরিমাণ কম হয় এবং এই গবেষণা অধিকাংশ স্পষ্ট ও সুনির্দিষ্ট কার্যকারণ সম্পর্কের  ভিত্তিতে  অনেক বেশি বিজ্ঞানকেন্দ্রিক ও নির্ভরযোগ্য |

2. গুণগত গবেষণা/Qualitative research

অসংখ্য তথ্যসমূহের এই গবেষণা শব্দে, বাক্যে, ছবিতে, ভাবে, অংকনে প্রকাশ করা হয় | 

উদাহরণস্বরূপ বলা যায় মুক্ত প্রশ্নাবলীর দ্বারা নৃবিজ্ঞান, রোজনামচা বা ডাইরির বর্ণনা প্রভৃতি এই ধরনের গবেষণার অন্তর্ভুক্ত | 

তাৎপর্য- এই পদ্ধতিতে গবেষকের মনোভাব, প্রত্যাশা বৃদ্ধি ও মতাদর্শ প্রকাশ পায় | এই ধরনের গবেষণা পদ্ধতিতে সংখ্যাতাত্ত্বিক গবেষণার থেকে অনেক নমনীয় ও অনির্ভরযোগ্য হয় | 

3. মূল্যায়ন মূলক গবেষণা/Evaluative research

যে বিশেষ গবেষণা কোন পরিকল্পনার কার্যকারিতা মূল্যায়নের লক্ষ্যে গৃহীত হয় তাকে মূল্যায়ন মূলক গবেষণা বলে | 

প্রকল্প বাস্তবায়িত হওয়ার সময় নিরন্তরভাবে যে মূল্যায়ন হয়ে থাকে তাকে সহগামী মূল্যায়ন বলে | প্রকল্প বাস্তবায়িত হওয়ার পর বা মাঝামাঝি সময় যে মূল্যায়ন হয় তাকে বিকল্প মূল্যায়ন এবং প্রকল্প বাস্তবায়নের শেষে যে মূল্যায়ন হয় তাকে প্রান্তিক মূল্যায়ন বলে | 

তাৎপর্য- এই ধরনের গবেষণার মাধ্যমে কোন প্রকল্পের বর্তমান পরিস্থিতি সম্ভাবনা বিশ্লেষণ করা যায় |

4. মৌলিক গবেষণা/ Basic research

মৌলিক গবেষণা হল বিজ্ঞানের প্রচলিত জ্ঞানের মাধ্যমে নবীনতর তথ্য উপস্থাপন ও নতুন আবিষ্কার | 

উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় বিজ্ঞানের বিভিন্ন তত্ত্ব যেমন , আর্কিমিডিসের তত্ত্ব, নিউটন তত্ত্ব,সমাজ বিজ্ঞানের বিভিন্ন তত্ত্ব, ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য| 

তাৎপর্য- এই ধরনের গবেষণায় নতুন তত্ত্ব আবিষ্কার এর সঙ্গে সঙ্গে পুরানো তত্ত্ব গুলি পরিমার্জিত হতে থাকে |

5. ফলিত গবেষণা/Applied research

বাস্তব কোনো  সমস্যার সমাধানের উদ্দেশ্যে যে গবেষণা চালিত হয় তাকে ফলিত গবেষণা বা প্রয়োগিক গবেষণা বলে |

যেমন- বাসস্থান সমস্যা, যানজট সমস্যা, কিশোর অপরাধের সমস্যা আরো বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের উদ্দেশ্যে এই ধরনের গবেষণা ব্যবহৃত হয় | 

তাৎপর্য- এই ধরনের গবেষণা গুলি অনেক বেশি প্রয়োগমূলক তাই বাস্তব জীবনে ব্যবহারযোগ্যতা অনেক বেশি যার সহজ উপলব্ধি বোঝা যায় চিকিৎসা শাস্ত্রে | 

6. কার্যক্রম গবেষণা/Activity research

সামাজিক সমস্যা কেন্দ্রিক কোন বিষয়ের কারণ বিশ্লেষণের মাধ্যমে তার সমস্যা দূরীকরণে উপায় নির্ণয়ক গবেষণা গুলিকে কার্যক্রম গবেষণা বলে | 

সাধারণত যেকোনো সামাজিক সমস্যার অনুধাবন, পরিকল্পনা প্রণয়ন, পরিকল্পনা কার্যকরণ ও  পর্যবেক্ষণ ইত্যাদি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এই গবেষণা পরিচালিত হয় | 

তাৎপর্য- এই ধরনের গবেষণাগুলি বিভিন্ন সামাজিক সমস্যার কারণ অনুসন্ধান করে এবং সেই সমস্যা দূরীকরণ এর বিকল্প পথ অনুসন্ধান করে | 

7. ঐতিহাসিক গবেষণা/Historical research

ঐতিহাসিক কোন ঘটনা বা মানবিক ক্রিয়া-কলাপ এর  ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট এর ভিত্তিতে সমস্যাগুলি সমাধানের জন্য যে পদ্ধতি অনুসন্ধান করা হয় তাকে ঐতিহাসিক গবেষণা বলে | 

এক্ষেত্রে ঐতিহাসিক দলিল বা নথিপত্র, প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন, বিশ্বস্ত কোন গ্রন্থাদি বা ব্যক্তিগত পর্যবেক্ষণের লিখিত বিবরণ প্রভৃতি ঐতিহাসিক গবেষণার উৎস হিসেবে ব্যবহার করা হয় | 

তাৎপর্য- এই ধরনের গবেষণা থেকে অতীতের কোন জনগোষ্ঠীর সমস্যা ও তাদের সমস্যাকে কিভাবে সমাধান করতো তা জানা যায়, যা বর্তমানে সম প্রকৃতির সমস্যার সমাধানের কারণ হতে পারে | 

8. পরীক্ষামূলক গবেষণা/Exploratory research

পরীক্ষাগারে বা ল্যাবরেটরীতে সাধারণত প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা পর্যবেক্ষণ ও সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়ার প্রক্রিয়া হল পরীক্ষামূলক গবেষণা | 

পরীক্ষাগারে এই ধরনের গবেষণাগুলিতে প্রধানত দুটি পদ্ধতি ব্যবহৃত হয় যথা-  তুলনামূলক পরীক্ষা এবং সুনিশ্চিতকরণ পরীক্ষা | 

        গবেষণাগারে প্রকৃতি অনুসারে এটি দুই প্রকার যথা- i)  বীক্ষণাগার পরীক্ষণ ও ii) ক্ষেত্র পরীক্ষণ | 

তাৎপর্য-  সাধারণত পরিমাণবাচক তথ্যের ক্ষেত্রে এই ধরনের গবেষণা কার্যকারী হয় গুণবাচক তথ্যগুলিকে কিছু কিছু ক্ষেত্রে পরিমাণবাচক তথ্যে রূপান্তরিত করে এই ধরনের গবেষণা করা যায় |

9. বিষয়বস্তু বিশ্লেষণ মূলক গবেষণা/Content analytical research

কোন বিষয়ে বিশ্লেষণের জন্য তার উপাদান গুলির বিভিন্ন পরিমাণ ও সংশ্লিষ্ট তথ্যাদির যথাযথ বিশ্লেষণ নির্ভর অনুসন্ধান কে বিষয়বস্তু মূলক গবেষণা বলে | 

বিষয়বস্তুর উপাদান গুলির মধ্যে পরিমাণ, উৎস, প্রকারভেদ প্রভৃতিকে বিবেচনা করা যায় | 

তাৎপর্য- সাধারণত কোন বিষয়ে ভুল ধারণা, প্রকাশভঙ্গি, শব্দ বা অন্যান্য বার্তা এই গবেষণার মাধ্যমে সহজে আলোকপাত করা যায় | 

10. ঘটনা অধ্যায়ন/Case study

কোন একটি নির্দিষ্ট সময়ে কোন একটি নির্দিষ্ট ক্ষেত্রের কোন একটি নির্দিষ্ট বিষয়কে কোন একটি নির্দিষ্ট দলের গুণগত পর্যবেক্ষণ হলো ঘটনা অধ্যায়ন | 

দল বা ব্যক্তি নির্ভর এই গবেষণা বিভিন্ন ক্ষেত্রে নতুন চিন্তাধারার ও ও সিদ্ধান্তে উপনীত হয় |  ব্যক্তিগত দলিলপত্র, জীবন ইতিহাস জীবনকাহিনী  প্রভৃতি এই ঘটনার উৎস হিসাবে বিবেচিত হয় | 

তাৎপর্য- অধিকাংশ সামাজিক বিষয়গুলি এই গবেষণায় ব্যবহৃত হয় | এবং স্থান-কাল নির্ভর এই গবেষণা  ভিন্ন ভিন্ন ফলাফলের প্রতিফলন করে | 

  11. সামাজিক জরিপ গবেষণা/ Social survey Research

কোন একটি নির্দিষ্ট আর্থসামাজিক সমস্যা কে সামনে রেখে সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের  মতামত সংগ্রহের মাধ্যমে যে গবেষণা পরিচালিত হয় তাতে সামাজিক জরিপ গবেষণা বলে I এই ধরনের গবেষণায় সংশ্লিষ্ট অঞ্চলটিতে ভুক্তভোগী মানুষদের ও উপাদান গুলির সঙ্গে গবেষকের প্রত্যক্ষ সংযোগ ঘটে I  তাই তাদের প্রতিক্রিয়া নথিকরণ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সমগ্র গবেষণা পর্যায় চালিত হয় I

তাৎপর্য- নির্দিষ্ট স্থান ও কালের প্রেক্ষাপটে নির্ধারিত সমস্যার সমাধান এই গবেষণার উদ্দেশ্য তাই এই গবেষণা অত্যন্ত কার্যকারী I 

12. উদঘাটন মূলক গবেষণা/ Exploratory research

নতুন কোন বিষয় আবিষ্কার উদ্ভাবন বা তথ্য উপস্থাপন ও বিশ্লেষণ করার পদ্ধতিকে উদঘাটন মূলক গবেষণার শ্রেণীভূক্ত করা হয় | স্থান ও কালের ভিত্তিতে এই ধরনের গবেষণার ফলাফল সতত পরিবর্তনশীল |

তাৎপর্য-  এই ধরনের গবেষণা অপেক্ষাকৃত নির্ভুল তথ্য প্রদান করে এবং বিভিন্ন গবেষণার সহায়ক যেমন বিংশ শতকের ষাটের দশকে AIDS  এর সম্পর্কে সঠিক ধারণা ছিল না কিন্তু গবেষণায় AIDS  এর কারণ ও প্রতিষেধকের আবিষ্কার সম্ভব হয়েছে | 

13. ব্যাখ্যামূলক গবেষণা/Explanatory research

প্রধানত ভৌগোলিক বিষয়গুলির ক্ষেত্রে ব্যবহৃত এই ধরনের গবেষণা কোন বিষয়ের ও তার সমস্যা সমাধানের পথ নিরূপণ করে |

         এই ধরনের গবেষণা বর্ণনামূলক ও বিশ্লেষণ মূলক হয়ে থাকে | 

তাৎপর্য-  এই ধরনের গবেষণা কতগুলি নির্দিষ্ট ঘটনা কে একটির সাপেক্ষে আরেকটির প্রভাব সম্পর্কে বিশ্লেষণ করে | 

14. ক্ষেত্রের গবেষণা /Field Research

সমাজ বিজ্ঞানের বিভিন্ন সমস্যা ওর প্রাকৃতিক সমস্যাগুলির প্রেক্ষাপট পর্যালোচনার জন্য  যে ধরনের গবেষণা কার্যসম্পাদন হয় তাদেরকে ক্ষেত্র  গবেষণা  বলে I এই ধরনের গবেষণায় গবেষণাগারের প্রয়োজন খুব একটা  দরকারী নয় I তবে মাঝে মাঝে ক্ষেত্র থেকে আহরিত তথ্য ও  ও জ্ঞান  যাচাইয়ের জন্য গবেষণাগারের পরীক্ষা প্রয়োজন হয় I 

তাৎপর্য-   আঞ্চলিক সমস্যার সমাধানে এই ধরনের গবেষণা অত্যন্ত প্রয়োজন I সে অঞ্চল অতিক্ষুদ্র মধ্যম ও বৃহত্তর প্রকৃতির  হতে পারে I

15. গবেষণাগার গবেষণা / Laboratory Research

সাধারণত পিওর সাইন্স বা বিশুদ্ধ বিজ্ঞানে র বিভিন্ন শাখায় এই ধরনের গবেষণা পরিলক্ষিত হয় I গবেষণাগারে পূর্বানুমানগুলি  যাচাই করা হয় বিভিন্ন ধরণের পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে I

 তাৎপর্য- জ্ঞান-বিজ্ঞানের বিশুদ্ধ  তথ্যগুলি অধিকাংশই গবেষণাগারে পরীক্ষিত হয় এবং পরবর্তীকালে তা জনকল্যাণে ব্যবহৃত হয় I তাই এই ধরনের গবেষণা নতুন আবিষ্কারের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজন I 

16. অংশগ্রহণমূলক গবেষণা/Participatory research

যে গবেষণায় গবেষক সংশ্লিষ্ট বিষয়ের সঙ্গে সংযুক্ত ব্যক্তিদের মতামত পরামর্শ এবং প্রক্রিয়াকরনের সাথে সংযুক্ত থাকে তাকে অংশগ্রহণমূলক গবেষণা বলে | কৃষি উৎপাদন সম্পর্কে গবেষণা করতে গিয়ে যেমন গবেষকে কৃষকের সক্রিয় অংশগ্রহণ কে নির্বাচন করে | 

 তাৎপর্য- এই ধরনের গবেষণা অপেক্ষাকৃত সঠিক তথ্য উপস্থাপন ও সমস্যার সমাধান করতে  সহায়ক হয় |

17. অংশগ্রহণ বিহীন গবেষণা/Research without participation

  এই ধরনের গবেষণায় বিষয়বস্তুর সঙ্গে সংযুক্ত ব্যক্তিদের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ ছড়াই গবেষণাকার্য চলতে পারে | 

এক্ষেত্রে গবেষক কোন তথ্যের ওপর ভিত্তি করে গবেষণা  কার্যকর করে থাকে | 

তাৎপর্য-  এই ধরনের গবেষণা কোন বৃহত্তর সমস্যা আলোকপাত করতে সম্ভব হলেও সমস্যার স্থানিক বা ক্ষেত্র নির্ভর সমস্যাকে বিশ্লেষণ করতে পারে না | 

উপসংহার:

বিভিন্ন ধরনের গবেষণার প্রকৃতি সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান গবেষক কে তার পদ্ধতি নির্বাচনের সাহায্য করেI গবেষণার প্রকৃতি দিনদিন বিবর্তিত হচ্ছে এবং গবেষণার ক্ষেত্রে নতুন নতুন জ্ঞানের সংশ্লেষ এর মাধ্যমে নতুন চিন্তনের সংযোজন হচ্ছে I  কোন নির্দিষ্ট বিষয়ের গবেষণা শুরু করার আগে তার পদ্ধতি সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গবেষককে সিদ্ধান্ত নিতে হয় I বিবেচনা করতে হয়  গবেষণার মূল প্রতিপাদ্য ও প্রেক্ষাপট I  তথ্য সংগ্রহের  ক্ষেত্র  ও তার সুবিধা অসুবিধা  বিবেচনা করেই সামগ্রিকভাবে গবেষক কে তার আলোচ্য বিষয়ের গভীরে প্রবেশ করতে হয় I তাই গবেষণার প্রকৃতি জানান অত্যন্ত জরুরীI 

Leave a Reply

Your email address will not be published.