Details study about Maasai, famous tribes in Africa | আফ্রিকার বিখ্যাত উপজাতি মাসাই সম্পর্কে বিস্তারিত অধ্যয়ন

Table of Contents

Introduction:

The Maasai are one of the most famous tribes in Africa, nomadic and pastoral. They live in the vast valley of the Upper Nile. This population is made up of a combination of Mediterranean and Negro tribes. The Nilotic source connects them to the Kalenjin tribe of Kenya, which is famous for producing the world’s best long-distance runners. The Maasai speak the ‘Maa’ language. The word ‘Maasai’ in this language comes from ‘maa-sai’ which means “my man”. It is believed that in the middle of the fifteenth century, the ancestors of the Maasai from North Africa moved south along the Nile, reaching northern Kenya and northern Tanzania. 

Origin of Maasai:  

The Maasai originated in the Upper Nile Valley north of Lake Turkana in Africa. They started migrating south from that place in the fifteenth century. The original home of the Maasai is called “Ol Doinyo Lengai” in their language, which means “The Mountain of God”, which they believe is the mountainous region of northern Tanzania.

Location of Maasai:

The Maasai live east of Lake Victoria on the equatorial plateau of Africa. It is about 400 km north-south and about 550 km east-west. Geologically, the plateau is formed by the accumulation of numerous volcanic lavas. Kilimanjaro and Mount Kenya are the main ones. In ancient times, due to extreme drought, more than half of the land occupied by the Maasai tribe was taken away by the British, and created the Wildlife Conservation Center,  national parks, and highways.

The environmental condition of Maasai:

Due to the location of the plateau in the equatorial climate, the average temperature here is around 18 degrees centigrade. However, it is very hot during the day and very cold at night. Occasional heavy rainfall is observed here.

Ethenic characteristic of Maasai:

They are very long and simple in structure. Their bone structure is long. The hands and feet are narrow and have long toes. Their skin color varies from light chocolate to dark brown. The head structure is long and the face is narrow. Men have light hair on their faces, their hair is very thick and long.

Language of Maasai:

The Maasai speak the ‘Maa’ language, which is a member of the Nilo-Saharan language group. This language group is related to Dinka and Nuer.

The population of Maasai:

According to 2018 statistics, the total population of Maasai was 12 lakh 97 thousand. Kenya has the highest population growth rate. In 1990, the population of Kenya was about 377,000, which increased to 8,041,000 in 2009. The population of Tanzania in 2009 was about 430,000.

Economy and livelihood of Maasai:

Maasai are mainly pastoral. Their main source of income is their livestock and animal products. Cows, goats, and sheep are their main domesticated animals. However, at present some Maasai have been involved in tourism. Many of them abandoned the nomadic scholarship and settled down in trade and agriculture. Usually, 16 to 20-year-old Maasai youths have to be trained as warriors.

Livestock of Maasai:

Cattle are the main source of livelihood and the economic backbone of the Maasai. Whether a person is wealthy in that society is determined by the number of animals in his family. There are two main divisions of this tribe in Kenya: Black Ox and Red Bullock. Cows, goats, sheep, and donkeys are their main livestock. They use it mainly as milk and blood for domesticated animals. They exchange livestock in the form of a marriage dowry. Animal Leather- Shoes are used as clothing and leather beds. Dung is used to coating the walls of the house with soil. They use donkeys as carriers. Maasai’s way of life revolves around their cattle.

Herd of Maasai:

Among the domesticated animals, cows, goats, sheep, and donkeys are notable. Among these cows is their main property. Usually, women collect animal milk. Animal meat and blood are their favorite foods. Although they do not know the use of cheese as a dairy product, they do know the use of cream and butter. Usually, they do not kill cows. Normally when a cow becomes disabled or falls ill in an accident then they eat the meat of that cow.

Agriculture of Maasai:

The Maasai are mainly pastoralists and have nomadic nature. Their agriculture is not particularly noticeable. More recently, however, they have turned their attention to agricultural work, and have changed their way of life from a nomadic nature to a sustainable subsistence farming system. They cultivate paddy, maize, and other crops as well as cabbage and various vegetables in the vacant land near their homes.

Culture and tradition of Maasai:

The main source of their pride is the warriors. It is said that to become a Maasai, one has to be born into the world’s great warrior culture. In addition to the traditional sword, Maasai shepherds and warriors also carry a spear and sometimes a throwing wooden club called rungu. The spear is the pastoralist’s weapon for excellence. Parents or other elderly people in the Maasai community act as guides and mentors to their sons. They carry this culture through the generations.

House type of Maasai:

Their houses are like rectangular huts. These temporary houses are usually 2 m wide and 3 m long with rounded corners with local materials and their traditional style. The walls of the houses are made of a combination of sticks, grass, mud, and dung. The canopy of the house is made of leaves and straw. Their daughters are mainly skilled in building this house. The exterior design of almost all the rooms is nearly the same. They set up cattle sheds in front of the house or on one side of the fence to protect them from wild animals. The young animals are kept separately in these fenced areas for special care.

Clothing and ornaments of Maasai:

Maasai clothing varies according to gender, age, and location. Young men wear black clothes for several months after their circumcision. However, they prefer to wear red clothes. Their clothing is simple and is mainly made of leather. Younger girls and warriors use ornaments. The only wearable of the warriors is the skin of the calf’s hair. Women wear goatskin clothing. In recent times, they have been wearing clothes. They wear black, blue, checked, and striped fabrics along with multi-colored African clothing. The cloth wrapped around the body is called ‘Shuka‘ in their ‘Maa‘ language.

 The use of beaded jewelry is very familiar to them. Piercing the eardrums and enlarging the ear lobes are also part of the Maasai beauty, and both men and women wear metal hoops on their enlarged earlobes.

Hair Style of Maasai:

Both men and women shave their heads to celebrate circumcision and marriage. Both men and women keep their hair short most of the time. Only Maasai warriors can have long hair, which they can weave in thinly braided strands. They spend a lot of time styling their hair. Young boys are also shaved two days before circumcision.

Food Habit of Maasai:

The traditional diet of the Maasai has six basic ingredients: meat, blood, milk, fat, honey, and bark. They drink both fresh milk and sour yogurt. They drink fresh milk burned directly from cattle and sometimes they mix it with the blood of cattle. They collect blood by piercing their veins with knives before killing the animals. Mixed Blood and milk are mostly used as a pickle drink and as nutrition for the sick. Bulls and lambs are slaughtered for meat on special occasions. They tend to eat more mutton. Most recently, the Maasai people have combined their food with farm crops such as corn, rice, cabbage, and other food grains. Honey collected from the forest can be seen on their food list.

The religion of Maasai:

Maasai do not believe in religion. They believe in monotheism. Their gods are named Ngai or Nkai. These are the two forms of God. Such as the black god or the enkai-hell who is merciful. He brought favor, grass, and prosperity. He is found in thunder and rain. And the red god Bainkai-na-niyoki, who is vindictive. He brought famine and hunger. He is found in thunderstorms and is characterized by dry and dry seasons. At present most of the Maasai people are Christians and very few are Muslims.

Dance and Music of Maasai:

The Maasai dance is called Adamu (“Adamu”). Maasai warriors perform it by forming a circle of dancers. One or two people enter the center of the circle at once and start jumping while maintaining a narrow posture. In this dance, their ankles never touch the ground. Maasai people do not use instruments during singing or dancing. All their music is vocal. Their music consists of a combination of rhythms. When Olarani (the leader of the song) sings the tune, a chorus of vocalists sings the tune. . Olaranani is usually the person who can sing the best song. The beads that both men and women wear make a crunching sound while jumping and dancing. The peak season for singing and dancing is the rainy season, which is certainly a good time to celebrate important events in life such as circumcision and marriage.

Ceremony of Maasai:

The Maasai tribes carry on their culture for generations in various rituals. Notable among these are the circumcision, marriage ceremonies, and special occasions ‘Enkipaata’. Enkipatta is a particularly important event where a group of 14- to 16-year-old boys travel from village to village for four months, spend the night together on the last day, and dance all day from dawn to dusk. It is considered the beginning of their infancy to adolescence. After the Enkipatta ceremony, the boys prepare for the most important initiation known as imuratre (circumcision).

 Marriage and family of Maasai:

In this patriarchal society, wealth is more important than the individual. Older Maasai men make decisions about their various social issues in consultation with most seniors. The measure of a man’s wealth in Maasai is children and cattle. So the more of these two, the better. They believe a person with a lot of cattle but not many children is considered poor. Their marriages were held by outsiders. To give a cow and sheep as a gift to the son’s father during the marriage. Either the parents are a family with married children. Each family has its blacksmith who makes weapons. Every family fighter is trained. They preserve their own culture, politics, and traditions from generation to generation.

Conclusion:  

Each indigenous tribe has its characteristics and traditions. The Maasai are no exception. Over time, those cultures gradually became extinct under the control of civilized people. The British cut off 60 percent of Kenya’s Maasai lands in 1904 and 1911 through treaties for their settlers. Thus the Maasai were evicted and confined to the present-day Narok and Kajiado districts. Now climate change and continuous drought are putting more pressure on their people. The life expectancy of most Maasai people is dangerously low. It turns out to be the lowest life expectancy in the whole world. Males live an average of 42 years and females only 44 years of age. They are most at risk due to the uncivilized behavior of the so-called civilized people.

আফ্রিকার বিখ্যাত উপজাতি মাসাই সম্পর্কে বিস্তারিত অধ্যয়ন

ভূমিকা:

আফ্রিকার বিখ্যাত উপজাতিগুলির মধ্যে একটি পশুপালক যাযাবর জনগোষ্ঠী হল মাসাই।   এরা  ঊর্ধ্ব নীলনদ  উপত্যকার  বৃহৎ গ্রস্ত উপত্যকা অঞ্চলে বসবাস করে ।  এই জনগোষ্ঠী  ভূমধ্যসাগরীয়  ও নিগ্রো জনজাতির সংমিশ্রণে গঠিত। নিলোটিক উত্স তাদের কেনিয়ার কালেনজিন উপজাতির সাথে যুক্ত করে যা বিশ্বের সেরা দূর দূরত্বের দৌড়বিদ তৈরির জন্য বিখ্যাত। মাসাইরা ‘মা’ ভাষায় কথা বলে। এই ভাষায় ‘মাসাই’ শব্দটি  ‘মা-সাই’ থেকে এসেছে যার অর্থ  “আমার মানুষ”। মনে করা হয় যে পঞ্চদশ শতকের মাঝামাঝি সময়ে উত্তর আফ্রিকা থেকে মাসাইদের পূর্বপুরুষরা  নীলনদ বরাবর দক্ষিণ দিকে অগ্রসর হয়ে উত্তর কেনিয়া ও উত্তর তানজানিয়াএসে পৌঁছায়।  

মাসাইদের উৎপত্তি:

আফ্রিকার   তুরকানা হ্রদের  উত্তরে ঊর্ধ্ব নীলনদ উপত্যকাই হল মাসাইদের উৎপত্তিস্থল। এরা পঞ্চদশ শতকে ওই স্থান থেকে দক্ষিণ দিকে স্থানান্তরিত হতে শুরু করে। মাসাইদের আদি বাসস্থানকে  তাদের  ভাষায় “ওল ডোইনিও লেংগাই” বলে যার আক্ষরিক অর্থ “ঈশ্বরের পর্বত”, যা তারা বিশ্বাস করে উত্তর তানজানিয়ার পার্বত্য অঞ্চল কে। 

মাসাইদের অবস্থান:

আফ্রিকার নিরক্ষীয় মালভূমিতে ভিক্টোরিয়া হ্রদের পূর্বে মাসাইদের বসবাস।  উত্তর দক্ষিণে প্রায় 400 কিলোমিটার পূর্ব-পশ্চিম প্রায় 550 কিলোমিটার  বিস্তৃত এই অঞ্চল।  ভূতাত্ত্বিক ভাবে অসংখ্য আগ্নেয়গিরির  লাভা সঞ্চিত হয়ে এই মালভূমি সৃষ্টি হয়েছে।   যেগুলি মধ্যে কিলিমাঞ্জারো এবং মাউন্ট কেনিয়া প্রধান।   একসময় চরম  খরার কারণে প্রায় অর্ধেকের বেশি মাসাই জনজাতির বসবাসকারী জমি ব্রিটিশরা কেড়ে নেয় এবং বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র জাতীয় উদ্যান ও রাজপথ তৈরি করে।  

জলবায়ু:

নিরক্ষীয় জলবায়ু অঞ্চলে র মালভূমির অবস্থান করার জন্য এখানে গড় উষ্ণতা প্রায় 18 ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড এর কাছাকাছি থাকে।  তবে দিনের বেলায় প্রচন্ড গরম এবং রাতে প্রচন্ড ঠান্ডা লক্ষ্য করা যায়।  এখানে মাঝে মাঝে প্রবল বৃষ্টিপাত লক্ষ্য করা যায়।

মাসাইদের দৈহিক গঠন বৈশিষ্ট্য:

এরা অত্যন্ত লম্বা ও সরল গঠনের হয়। এদের হাড়ের গঠন দীর্ঘ প্রকৃতির। হাত ও পায়ের পাতা সংকীর্ণ এবং দীর্ঘ আঙুল যুক্ত।এদের গায়ের রং হালকা চকলেট রঙের  থেকে গাঢ় বাদামি  রংয়ের হয়। মাথার গঠন  লম্বা এবং মুখমন্ডল  সরু হয়।  পুরুষদের মুখমন্ডলে সামান্য লোম থাকে, মাথার চুল  বেশ  ঘন ও দীর্ঘ প্রকৃতির হয়। 

মাসাইদের ভাষা:

 মাসাইরা  ‘মা’ ভাষায় কথা বলে, যা  নীল-সাহারা ভাষা গোষ্ঠীর সদস্য। এই ভাষা গোষ্ঠী ডিংকা এবং নুয়ারের সাথে সম্পর্কিত।

মাসাইদের জনসংখ্যা:

2018 পরিসংখ্যান অনুসারে মাসাইদের মোট জনসংখ্যা ছিল 12 লক্ষ 97 হাজার এর  মত । কেনিয়াতে এদের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার সর্বাধিক। 1990  এ কেনিয়াতে  এদের জনসংখ্যা ছিল প্রায় 3 লক্ষ 77 হাজার যা 2009 বৃদ্ধি পেয়ে 8 লক্ষ 41হাজার এর মত  হয়েছে।  তানজেনিয়া তে 2009 সালে এদের জনসংখ্যা ছিল প্রায় 4 লক্ষ 30 হাজার।

মাসাইদের অর্থনৈতিক জীবনযাত্রা:

মাসাইরা প্রধানত পশুপালক। এদের আয়ের প্রধান উৎস হল এদের পালিত পশু ও   পশু জাত পণ্য। গরু ছাগল ভেড়া এদের প্রধান পালিত পশু।পশুর দল নিয়ে এরা যাযাবর বৃত্তি গ্রহণ করে। তবে বর্তমান সময়ে কিছু কিছু মাসাই পর্যটন কাজে যুক্ত হয়েছে।  অনেকেই আবার যাযাবর বৃত্তি পরিত্যাগ  করে বাণিজ্য ও কৃষিকাজে  নিয়োজিত হয়ে স্থায়ীভাবে বসবাস করে। সাধারণত ষোল থেকে কুড়ি বছরের মাসাই যুবকদেরকে যোদ্ধা হিসেবে প্রশিক্ষণ নিতে হয়। 

মাসাইদের পশুসম্পদ:

গবাদিপশুর হল মাসাইদের  জীবিকার মূলভিত্তি ও অর্থনৈতিক মেরুদন্ড। সেই সমাজে একজন ব্যক্তি সম্পদশালী কিনা তা নির্ধারণ করা হয় তার পরিবারে কতগুলি  পশু আছে তার ভিত্তিতে। সম্পদের কম-বেশির ভিত্তিতে কেনিয়াতে  এই  উপজাতির দুটি প্রধান ভাগ লক্ষ্য করা যায় যথা: কালো ষাঁড় (Black Ox) ও লাল বলদ (Red Bullock)। গরু, ছাগল, ভেড়া ও গাধা  এদের প্রধান পশুসম্পদ।  খাদ্য হিসাবে প্রধানত   পালিত পশুর দুধ ও রক্ত  এটা ব্যবহার করেবিবাহের যৌতুক রূপের এরা পশুসম্পদ কে আদান প্রদান করে  ষাঁড় এবং ভেড়ার বাচ্চা বিশেষ অনুষ্ঠানে মাংসের জন্য জবাই করা হয়। প্রাণীদের চামড়া- জুতো পোশাক এবং চামড়া বিছানা হিসাবে ব্যবহার করা হয়। ঘরের দেওয়ালে মাটির সঙ্গে মেখে প্রলেপ দেওয়ার জন্য গোবর ব্যবহার করা হয়। পণ্য বাহক হিসাবে এরা গাধা কে ব্যবহার করে। মাসাইয়ের জীবনযাত্রা তাদের গবাদি পশুকে কেন্দ্র করে আবর্তিত হয়। 

মাসাইদের পশুপালন:

পালিত পশুর মধ্যে গরু, ছাগল, ভেড়া ও গাধা উল্লেখযোগ্য। এগুলির মধ্যে গরু এদের প্রধান সম্পত্তি।  সাধারণত মহিলারা পশুর দুধ সংগ্রহ করে। পশুর মাংস ও রক্ত এদের অত্যন্ত প্রিয় খাদ্য। দুগ্ধজাত পণ্য হিসেবে এরা চিজ এর ব্যবহার না জানলেও ক্রিম ও মাখন এর ব্যবহার  এরা জানে।   সাধারণত এরা গরুহত্যা করে না।  স্বাভাবিক নিয়মে কোন গরু অক্ষম হয়ে পড়লে বা দুর্ঘটনায় অসুস্থ হলে বা তখন সেই গরুর মাংস এরা ভক্ষণ করে।

মাসাইদের কৃষিকার্য:  

মাসাইরা প্রধানত পশুপালক যাযাবর প্রকৃতির  স্থায়ীভাবে এদের কৃষিকার্য বিশেষত লক্ষ্য করা যায় না।  তবে অতি সাম্প্রতিককালে এরা কৃষি কাজের প্রতি মনোনিবেশ করেছে, এবং তাদের জীবনযাত্রা যাযাবর প্রকৃতি থেকে স্থায়ী জীবিকা সত্ত্বা ভিত্তিক কৃষি ব্যবস্থায় পরিবর্তিত করেছে । এরা এদের  বাসগৃহের কাছাকাছি  ফাঁকা জমিতে ধান ভুট্টা ও অন্যান্য শস্য  এবং বাঁধাকপি ও বিভিন্ন শাক সবজির চাষ করে। 

মাসাইদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য:  

এদের গর্বের মূল উৎস হল এরা যোদ্ধা। কথিত আছে একজন মাসাই হতে গেলে বিশ্বের মহান যোদ্ধা সংস্কৃতির অন্তর্ভুক্ত হয়ে জন্মগ্রহণ করতে হয়।ঐতিহ্যবাহী তলোয়ার ছাড়াও, মাসাই মেষপালক এবং যোদ্ধারাও একটি বর্শা বহন করে এবং কখনও কখনও রুঙ্গু নামে একটি নিক্ষেপকারী কাঠের ক্লাবও বহন করে। বর্শা হল উৎকর্ষের জন্য পশুপালকের অস্ত্র। মাসাইদের সমাজের পিতা-মাতা বা অন্য কোন বয়স্ক লোকেরা তাদের ছেলেদের পথপ্রদর্শক  ও পরামর্শদাতা হিসেবে কাজ করে।পুরুষানুক্রমে তারা এই সংস্কৃতি বহন করে। 

9a. মাসাইদের বাসগৃহের  ধরণ:এদের ঘরগুলি আয়তাকার অনেকটা কুড়ে ঘরের মতো হয়ে থাকে। স্থানীয় উপকরণ ও নিজেদের প্রথাগত চিন্তাধারায় অস্থায়ী এই ঘর গুলি সাধারনত 2 মিটার চওড়া ও 3 মিটার লম্বা বৃত্তাকার কোনযুক্ত হয়। ঘরগুলির   দেওয়াল লাঠি, ঘাস, কাদা ও গোবরের সংমিশ্রনে তৈরি হয়। পাতা ও খড় দিয়ে  ঘরের ছাউনি তৈরি হয়। এদের মেয়েরাই প্রধানত এই ঘর তৈরীর কাজে পারদর্শী হয়। প্রায় সব ঘরের সামনের বাইরের নকশা প্রায় একই রকমের হয়ে থাকে।এরা বাড়ির সামনে  অথবা একপাশে  হিংস্র পশুর হাট থেকে রক্ষা করার জন্য বেড়া দেওয়া স্থানে গবাদিপশু গুলির রাখার ব্যবস্থা করে। পশুর বাচ্চা গুলিকে ঐসকল বেড়া দেওয়া স্থানের মধ্যে বিশেষ পরিচর্যার জন্য পৃথকভাবে রাখা হয়। 

9b.মাসাইদের পোশাক -পরিচ্ছদ ও অলংকার:  লিঙ্গ, বয়স এবং স্থান অনুসারে মাসাইদের পোশাক পরিবর্তিত হয়। যুবকরা তাদের খৎনা করার পর বেশ কয়েক মাস কালো পোশাক পরে।যদিও এরা লাল রংয়ের পোশাক পরতে  অধিক ভালোবাসে।  এদের পোশাক সরল প্রকৃতির ও মূলত চামড়া দিয়ে তৈরি হয়। কমবয়সী মেয়েরা ও যোদ্ধারা অলংকার ব্যবহার করে। যোদ্ধাদের একমাত্র পরিধেয় বাছুরের লোমসহ চামড়া। মহিলারা ছাগলের চামড়ার পোশাক পরে।সাম্প্রতিককালের এরা কাপড়ের পোশাক ও পরিধান করছে। বহু রঙের আফ্রিকান পোশাকের সাথে এরা কালো, নীল, চেক করা এবং ডোরাকাটা কাপড়ও পরে।  শরীরের চারপাশে মোড়ানো কাপড়কে এদের ‘মা’ ভাষায় ‘শুকা’ বলে। পুঁতির গয়নার ব্যবহার এদের কাছে অতি পরিচিত।   কানের পাতা  ছিদ্র করা এবং কানের লোব প্রসারিত করাও মাসাই সৌন্দর্যের অংশ, এবং পুরুষ এবং মহিলা উভয়ই তাদের প্রসারিত কানের লোবগুলিতে ধাতব হুপ পরেন।

9c. মাসাইদের চুলের ধরন: খৎনা এবং বিবাহ অনুষ্ঠান উদযাপন করতে মহিলা এবং পুরুষ উভয়েই তাদের মাথার  চুল কামিয়ে  ন্যাড়া  হয়। মহিলা এবং পুরুষ উভয়েই বেশিরভাগ সময় চুল ছোট রাখে। শুধুমাত্র মাসাই যোদ্ধারা লম্বা চুল রাখতে পারে, যা তারা পাতলা বিনুনিযুক্ত স্ট্র্যান্ডে বুনতে পারে।তারা চুলের স্টাইল করার জন্য অনেক সময় ব্যয় করে। অল্পবয়সী ছেলেদেরও খতনা করানোর দুই দিন আগে ন্যাড়া করা হয়।

9d.মাসাইদের খাদ্যাভ্যাস:  মাসাইদের ঐতিহ্যগত খাদ্যে ছয়টি মৌলিক  উপাদান রয়েছে: মাংস, রক্ত, দুধ, চর্বি, মধু এবং গাছের ছাল। তারা তাজা দুধ এবং টক দই উভয়ই পান করে। গবাদিপশুর থেকে দহন করা তাজা দুধ  তারা সরাসরি পান করে এবং কখনও কখনও তা গবাদি পশুর রক্তের সাথে মিশিয়ে পান করে। পশু গুলি হত্যা করার আগে তাদের শিরায়  ছুরি দিয়ে ছিদ্র করে এরা রক্ত সংগ্রহ করে। মিশ্র রক্ত ​​এবং দুধ বেশিরভাগই একটি আচার পানীয় হিসাবে এবং অসুস্থদের জন্য পুষ্টি হিসাবে ব্যবহৃত হয়। ষাঁড় এবং ভেড়ার বাচ্চা বিশেষ অনুষ্ঠানে মাংসের জন্য জবাই করা হয়। ভেড়ার মাংস কে এরা অধিক ভক্ষণ করে থাকে। অতি সম্প্রতি, মাসাই জনগণ তাদের খাদ্যের সাথে খামারের ফসল যেমন ভুট্টার খাবার, চাল, বাঁধাকপি অন্যান্য খাদ্য শস্যের সাথে সংযুক্ত করেছে।অরণ্য থেকে সংগৃহীত মধু এদের খাদ্য তালিকা তে লক্ষ্য করা যায়। 

9e. মাসাইদের ধর্ম ও বিশ্বাস:  মাসাইরা ধর্মে বিশ্বাস করে না। এরা একেশ্বরবাদে বিশ্বাসী। এদের ঈশ্বরের নাম দেওয়া হয়েছে এনগাই বা এনকাই। এই ঈশ্বরের দুটি রূপ। যেমন; কালো  ঈশ্বর বা এনকাই-নারক  যিনি দয়ালু। তিনি প্রিয়, ঘাস এবং সমৃদ্ধি নিয়ে  আসেন। বজ্র ও বৃষ্টিতে তাকে পাওয়া যায়।

লাল ঈশ্বর বাএনকাই-না-নিয়োকি,  যিনি প্রতিহিংসাপরায়ণ। তিনি দুর্ভিক্ষ এবং ক্ষুধা নিয়ে  আসেন। তাকে বজ্রপাতের মধ্যে পাওয়া যায় এবং শুষ্ক ও খরা মৌসুমের সাথে চিহ্নিত করা হয়।

 বর্তমানে বেশিরভাগ মাসাই জনগণ খ্রিস্টান এবং খুব কমই মুসলিম। 

9f. মাসাইদের নৃত্য ও সঙ্গীত:  মাসাইদের নৃত্যকে আদামু (“Adamu“) বলা হয়। নৃত্য কারীদের একটি বৃত্ত তৈরি করে মাসাই যোদ্ধারা এটি   সঞ্চালন  করে। এক বা দুইজন একবারে এই বৃত্তের কেন্দ্রে প্রবেশ করে একটি সংকীর্ণ ভঙ্গি বজায় রেখে লাফ দেওয়া শুরু করে।এই  নৃত্যে  কখন ও তাদের  পায়ের গোড়ালি মাটিতে স্পর্শ  করে  না। মাসাই লোকেরা গান বা নাচের সময় যন্ত্র ব্যবহার করে না। তাদের সমস্ত সঙ্গীতই কণ্ঠস্বর। তাদের সঙ্গীত ছন্দের সমন্বয়ে গঠিত। যখন ওলারাণী (গানের নেতা) সুর গায় তখন কণ্ঠশিল্পীদের একটি কোরাস সেই সুরটি  গাইতে থাকে। । ওলারানানি সাধারণত সেই ব্যক্তি যিনি সেরা গানটি গাইতে পারেন। পুরুষ এবং মহিলা উভয়েই যে পুঁতিগুলি পরে, লাফিয়ে নাচের সময় তাও একটি ঝিঁঝিঁ শব্দ তৈরি করে। গান গাওয়া এবং নাচের শীর্ষ মরসুম হল বৃষ্টির সময়, যা অবশ্যই জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠান যেমন খৎনা এবং বিবাহ উদযাপনের জন্য একটি অনুকূল সময়।

9g. মাসাইদের আচার অনুষ্ঠান: মাসাই উপজাতিরা তাদের সংস্কৃতিকে বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠানে বংশপরম্পরায় পালন  করে। সেগুলির মধ্যে খৎনা, বিবাহ অনুষ্ঠান এবং বিশেষ অনুষ্ঠান  ‘এনকিপাট্টা’( Enkipaata) উল্লেখযোগ্য। এনকিপাট্টা একটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠান যেখানে 14 থেকে 16 বছর বয়সের ছেলেদের একটি দল চার মাস ধরে গ্রামে গ্রামে ঘুরে শেষ দিনে একত্রে রাত্রিযাপন করে ও ভোরবেলা থেকে সারাদিন নৃত্য করতে থাকে।  এটি  তাদের শৈশব থেকে যৌবনে পদার্পণ এর সূচনা লগ্ন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এনকিপাট্টা অনুষ্ঠানের পর, ছেলেরা ইমুরাতরে (খৎনা) নামে পরিচিত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দীক্ষার জন্য প্রস্তুত হয়। 

9h. মাসাইদের বিবাহ ও পরিবার:  পিতৃতান্ত্রিক এই সমাজে ব্যক্তির চেয়ে সম্পদের গুরুত্ব বেশি। বয়স্ক মাসাই পুরুষরা সর্বাধিক প্রবীণদের সাথে  আলোচনা করে তাদের বিভিন্ন সামাজিক বিষয়গুলি  সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। মাসাইয়ের মধ্যে একজন মানুষের সম্পদের পরিমাপ হল সন্তান ও গবাদি পশু। তাই এই দুটি যত বেশি থাকে তত ভালো। তারা বিশ্বাস করে যে একজন লোক যার প্রচুর গবাদি পশু আছে কিন্তু অনেক সন্তান নেই, তাকে দরিদ্র বিবেচনা করা হয়।  বাইরের গোষ্ঠীর সাথে তাদের বিবাহ অনুষ্ঠিত হয়। বিয়ের সময় ছেলের বাবাকে গরু ভেড়া উপহার দিতে। হয় বাবা-মা বিবাহিত সন্তান নিয়ে এক একটি পরিবার। প্রতিটি পরিবারে নিজস্ব কর্মকার আছে, যারা অস্ত্রশস্ত্র তৈরি করে। প্রতি পরিবারের যোদ্ধা প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এদের নিজস্ব সংস্কৃতি, রাজনীতি এবং ঐতিহ্য বংশ-পরম্পরায়  এরা রক্ষা করে।

10. উপসংহার: প্রত্যেকটি  আদিবাসী জনজাতির একটি নিজস্ব স্বকীয় বৈশিষ্ট্য ও পরম্পরা  থাকে। মাসাইদের ক্ষেত্রে ও তা ব্যতিক্রম নয়।  সময়ের সাথে সাথে সভ্য মানুষের নিয়ন্ত্রণে সেইসব সংস্কৃতি আস্তে আস্তে বিলুপ্ত হয়। ব্রিটিশরা তাদের বসতি স্থাপনকারীদের জন্য 1904 সালে এবং 1911 সালে চুক্তির মাধ্যমে, কেনিয়ার মাসাইদের জমিগুলি 60 শতাংশ কেটে ফেলেছিল। এইভাবে মাসাইদের উচ্ছেদ করে বর্তমানের নারোক এবং কাজিয়াদো জেলায় সীমাবদ্ধ করে। এখন জলবায়ু পরিবর্তন এবং ক্রমাগত খরা তাদের জনগণের উপর আরও চাপ সৃষ্টি করে। বেশিরভাগ মাসাই জনগণের আয়ু বিপজ্জনকভাবে কম। সমগ্র বিশ্বে সর্বনিম্ন গড়া আয়ু  তে পরিণত করে। এদের পুরুষরা   গড়ে 42 বছর বয়স  ও মহিলারা মাত্র 44 বছর বয়স পর্যন্ত বেঁচে থাকে। তথাকথিত সভ্য মানুষের অসভ্য আচরণের প্রভাবে এরা সবচেয়ে বেশি বিপদগ্রস্ত।

FAQ:

What are the Maasai known for? 

The Maasai are one of the most famous tribes in Africa, nomadic and pastoral. They live in the vast valley of the Upper Nile. This population is made up of a combination of Mediterranean and Negro tribes. The Nilotic source connects them to the Kalenjin tribe of Kenya, which is famous for producing the world’s best long-distance runners.

Where is the Maasai tribe from?

The Maasai originated in the Upper Nile Valley north of Lake Turkana in Africa. They started migrating south from that place in the fifteenth century. The original home of the Maasai is called “Ol Doinyo Lengai” in their language, which means “The Mountain of God”, which they believe is the mountainous region of northern Tanzania.

Who are Maasais and what do they do?

Maasai are mainly pastoral. Their main source of income is their livestock and animal products. Cows, goats, and sheep are their main domesticated animals. However, at present some Maasai have been involved in tourism. 

What do the Maasai call their God?

Their gods are named Ngai or Nkai. These are the two forms of God. Such as the black god or the enkai-hell who is merciful. He brought favor, grass, and prosperity. He is found in thunder and rain. And the red god Bainkai-na-niyoki, who is vindictive. He brought famine and hunger. He is found in thunderstorms and is characterized by dry and dry seasons. At present most of the Maasai people are Christians and very few are Muslims.

How many wives can a Maasai have?

Three wives for a wealthy man is considered not at all excessive. The Maasai in the faith of Islam can marry a maximum of four wives at a time. Except for Muslims, Kenyan Maasai men can marry as many women as they like. They accept polygamy as a way of life and source of income.

Do Maasai people still exist?

Over time, those Maasai tribes gradually became extinct under the control of civilized people. The British cut off 60 percent of Kenya’s Maasai lands in 1904 and 1911 through treaties for their settlers. Thus the Maasai were evicted and confined to the present-day Narok and Kajiado districts.

Leave a Reply

Your email address will not be published.